kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

বগুড়ার শেরপুর

ঘরে স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ রেখে পালালেন স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি    

২৫ জুন, ২০২১ ১৩:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘরে স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ রেখে পালালেন স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন

বগুড়ার শেরপুরে ঘরে স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ রেখে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছেন। নিহত ওই গৃহবধূর নাম মোছা. আদুরী খাতুন (৩০)। খবর পেয়েই আজ শুক্রবার (২৫ জুন) দুপুর ১২টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন। পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

নিহতের স্বজন ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নের আটাইল গ্রামের আবু হানিফের সঙ্গে একই গ্রামের আবু তাহেরের মেয়ে আদুরী খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা হচ্ছিল না। তাই ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত। এমনকি পারিবারিক কলহের জের ধরে মাঝেমধ্যেই তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতেন স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) সন্ধ্যার দিকে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে মারধরও করা হয় স্ত্রীকে। আর এসব নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে একই দিন রাত আনুমানিক ৮টার দিকে বসতবাড়ির নিজ শয়নকক্ষের তীরের সঙ্গে গলায় রশি লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন আদুরী।  

পরবর্তী সময়ে মধ্যরাতে আদুরী খাতুনের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে তার স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান।

শেরপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ওই গৃহবধূর মৃত্যুটি রহস্যজনক। তাই মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হওয়ার জন্য লাশটি উদ্ধার করে বগুড়ায় শজিমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পাওয়া গেলেই শুধু এটি হত্যা না আত্মহত্যা সেটি জানা ও বলা সম্ভব হবে। উক্ত ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান তিনি।



সাতদিনের সেরা