kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

ওবায়দুল কাদেরের ছোট বোনের বাসায় হামলার অভিযোগ, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

নোয়াখালী প্রতিনিধি   

২৪ জুন, ২০২১ ০৫:২৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওবায়দুল কাদেরের ছোট বোনের বাসায় হামলার অভিযোগ, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ওবায়দুল কাদেরের ছোট বোন রোকেয়া বেগমের (৫৫) বাসায় হামলার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে এ ঘটনায় আরেক ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করছেন দুই বোন।

রোকেয়া বেগম কাদের মির্জার ছোট বোন এবং তাহেরা বেগমের (৬৯) কাদের মির্জার বড় বোন এবং কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর মা।

বুধবার (২৩ জুন) রাত ১০টার দিকে বসুরহাট থানার সামনের সড়কে কাদের মির্জার বড় বোন তাহেরা বেগম (৬৯) ও ছোট বোন রোকেয়া বেগম (৫৫) কাদের মির্জা বিরোধী আওয়ামী লীগের অনুসারী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে এই বিক্ষোভ মিছিল করেন। এ সময় তারা বিক্ষোভ মিছিলে কাদের মির্জার অনুসারীদের নেতৃত্বে ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসায় হামলার প্রতিবাদে কাদের মির্জার শাস্তির দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দেন।

এর আগে একই দিন বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বসুরহাট পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বসুরহাট থানার পোল সংলগ্ন সেতুমন্ত্রীর ছোট বোন রোকেয়া বেগমের বাসভবন এইচ আর ভবনে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

সেতুমন্ত্রীর ছোট বোন রোকেয়া বেগম অভিযোগ করেন, রাতে তিনি বাসায় নামাজ পড়ছিলেন এ সময় বাসার প্রধান ফটকে এসে একদল সন্ত্রাসী তার ছেলে রাহাতকে খুঁজতে থাকে। এ সময় হামলাকারীরা বাসায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। এ ঘটনা মেয়র মির্জার সন্ত্রাসীরা ঘটিয়েছে। বিষয়টি তিনি ভাই ওবায়দুল কাদেরকে অবহিত করেছেন।

সেতুমন্ত্রীর ভাগ্নে ফখরুল ইসলাম রাহাত অভিযোগ করেন, কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে বিবদমান দ্বন্দ্বের জেরে কাদের মির্জা অনুসারী কেচ্ছা রাসেলের নেতৃত্বে আমার বাসায় হামলা করা হয়েছে। এ সময় তারা অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে।

রাত ১০টায় কাদের মির্জার দুই বোন স্থানীয় মিজানুর রহমান বাদল সমর্থিত লোকদের নিয়ে রাতে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে থানার সামনে বিক্ষোভ করেন।

এ বিষয়ে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জার ফোনে যোগাযোগ করা হলে ব্যক্তিগত সহকারী সিরাজুল ফোন রিসিভ করেন। তিনি বলেন, মেয়র বিশ্রামে আছেন। এ ধরনের কোনো ঘটনার সঙ্গে মেয়র অনুসারী কেউ জড়িত নয়। উনি শান্ত আছেন, ওনাকে উত্তেজিত করার জন্য এসব করা হচ্ছে।

জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, কয়েকজন লোক এসে বাসার গেটে লাথি মেরে গালমন্দ করেছে। এ ধরনের একটা সংবাদ আমরা পেয়েছি। আামি ঘটনাস্থলে আছি, বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।



সাতদিনের সেরা