kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৮। ৫ আগস্ট ২০২১। ২৫ জিলহজ ১৪৪২

বসুন্ধরা ফাউন্ডেশনের ৫৭তম সুদ ও সার্ভিস চার্জমুক্ত ঋণ বিতরণ কার্যক্রম

বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি   

২৩ জুন, ২০২১ ১৪:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বসুন্ধরা ফাউন্ডেশনের ৫৭তম সুদ ও সার্ভিস চার্জমুক্ত ঋণ বিতরণ কার্যক্রম

'দেশ ও মানুষের কল্যাণে' প্রতিপাদ্য নিয়ে দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে বসুন্ধরা গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেছে বসুন্ধরা ফাউন্ডেশন। এর উদ্যোগে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে সুদ ও সার্ভিস চার্জমুক্ত ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান করা হয়। ২০০৫ সালের ১২ আগস্ট থেকে এই ঋণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করে বসুন্ধরা ফাউন্ডেশন। বর্তমানে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সীমানা অতিক্রম করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলা ও কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার দরিদ্রদের মাঝে সুদ ও সার্ভিস চার্জমুক্ত ঋণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। 

করোনাভাইরাসের মহামারি আমাদের দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব ফেলেছে। এতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে দিন এনে দিন খাওয়ার মানুষের অবস্থা। এ অবস্থাতে বসুন্ধরা গ্রুপের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান 'বসুন্ধরা ফাউন্ডেশন' স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই ঋণ বিতরণ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর, নবীনগর এবং কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলায়। এ পর্যন্ত ২০ হাজার ৪৫১ জন অসহায়কে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করতে এবং জীবনমানের উন্নতির লক্ষ্যে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বসুন্ধরা ফাউন্ডেশন। 

বর্তমানে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার একটি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নের মোট ১১৮টি গ্রামের মধ্যে ৮০টি গ্রামে ঋণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি গ্রামের দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে এই সুবিধা পৌঁছে দিতে বসুন্ধরা ফাউন্ডেশন প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে।

উপকারভোগীদের কাছ থেকে কোনো জামানত বা সঞ্চয় গ্রহণ করে না। ঋণ বিতরণের তারিখ থেকে তিন মাস পর্যন্ত উপকারভোগীদের কাছ থেকে ঋণের কিস্তি আদায় করা হয় না। গত একমাসে চার কর্মদিবসে চার বারে ২৫৭তম ঋণ বিতরণ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়। এতে ৪২৯ জন হতদরিদ্রের মাঝে নগদ চল্লিশ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়। নতুন করে ১১৬ জন উপকারভোগী যোগ হয়েছেন। নতুন উপকারভোগীদের প্রত্যেককে ৭ হাজার ৫০০ টাকা এবং পুরাতন ৩১৩ জনের প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। 

এই ঋণ বিতরণ কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা ফাউন্ডেশনের ডিজিএম মো. মাইমুন কবির, বসুন্ধরা গ্রুপ ল্যান্ডের উপ-প্রধান প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম, বসুন্ধরা ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার মো. মোশারফ হোসেন, জুনিয়র অফিসার মো. আনোয়ার হোসেন, মো: শাহ-জাহান মিয়া প্রমুখ। 



সাতদিনের সেরা