kalerkantho

বুধবার । ২০ শ্রাবণ ১৪২৮। ৪ আগস্ট ২০২১। ২৪ জিলহজ ১৪৪২

ছেলে বউয়ের করা মামলায় ৯০ বছরের বৃদ্ধ পিতা ফেরারি!

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

২২ জুন, ২০২১ ২১:২৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছেলে বউয়ের করা মামলায় ৯০ বছরের বৃদ্ধ পিতা ফেরারি!

কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের ৯০ বছরের এক বৃদ্ধ নিজ পুত্র আর পুত্রবধূর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিকার চেয়েছেন। ভরণ-পোষণ তো দূরের কথা উল্টো পুত্রবধূর দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় ফেরারি হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। এলাকায় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ একাধিক সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে ব্যর্থ হয়েছেন সালিশকারীরা।

উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের চান্দপুর গ্রামের মো. আব্দুল লতিফের ৪ পুত্র। এর মধ্যে সবার বড় মো. আব্দুল মোতালেব বিজিবির সুবেদার। বড় ছেলে সুবেদার মো. আব্দুল মোতালেব ও তার স্ত্রী ছালেমা বেগমের অত্যাচার নির্যাতন ও মিথ্যা মামলায় আসামি হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, উনার ৩৬ শতক সম্পত্তি ৪ ছেলেকে সমানভাগে বণ্টন করে দেন। কিন্তু তার বড় ছেলে আব্দুল মোতালেব মার্চে বাড়িতে ছুটিতে এসে তার স্ত্রী ছালেমা বেগমকে নিয়ে ৩য় ছেলে মো. আব্দুল হান্নানের বসতঘর সংলগ্ন কিছু জায়গা জোরপূর্বক দখল করে নেয়। এ ঘটনায় টিলাগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের নিকট আমার ছেলে লিখিত অভিযোগ করেন। গত ১২ মার্চ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মালিক স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নিয়ে সালিশ বৈঠকে বসেন। বিষয়টি বানচাল করতে তার বড় ছেলে ও স্ত্রী ছালেমা বেগম বাড়িতে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। গত ৩ এপ্রিল কুলাউড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে ওসি বিনয় ভূষন রায়ের নির্দেশে বিষয়টি স্থানীয় পর্যায়ে নিষ্পত্তির চেষ্টা করেন। কিন্তু ছেলে তখন বাড়িতে না আসায় বিচষয়টি নিষ্পত্তি হচ্ছে না।

তিনি আরো অভিযোগ করেন, গত ১৯ জুন বিকেলে পুত্রবধূ ছালেমা বেগম তাকে মারপিট করেন। তার ছেলেরা তাকে উদ্ধার করে কুলাউড়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। সোমবার এ ব্যাপারে কুলাউড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ অস্বীকার করে ছেলে আব্দুল মোতালেব মোবাইলে বলেন, আমি ডিউটিতে আছি। পারিবারিক খুঁটিনাঁটি অনেক বিষয়ে আমি জানি না যেহেতু আমি বাড়িতে থাকি না। খোঁজ খবর নিয়ে পরে বিস্তারিত বলতে হবে।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়ে আমি এখন কিছু বলতে চাইছি না। যেহেতু আমার স্ত্রীর বিষয় সামনে আসছে। আমার স্ত্রীর কাছ থেকে বিষয়টি আগে জেনে নেই। পরে এ বিষয়ে কথা বলব।

কুলাউড়া থানার ওসি বিনয় ভুষণ রায় জানান, আমি অনেকবার চেষ্টা করেছি তাদের পারিবারিক বিষয়টি আপসে নিষ্পত্তি করার। কিন্তু বিজিবিতে চাকরিরত মোতালেব বাড়িতে না আসায় বিষয়টি নিষ্পত্তি হচ্ছে না। বর্তমানে দুই পক্ষ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা