kalerkantho

শুক্রবার । ২২ শ্রাবণ ১৪২৮। ৬ আগস্ট ২০২১। ২৬ জিলহজ ১৪৪২

স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করলেন স্বামী

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

২২ জুন, ২০২১ ১৯:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্ত্রী হত্যার দায় স্বীকার করলেন স্বামী

তিন মাস ১৯ দিন পর গার্মেন্টকর্মী আলেছা খাতুনকে (২১) হত্যার দায়ে স্বামী মো. সাব্বির হোসেনকে (২০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে সোমবার রাতে টঙ্গী এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ মঙ্গলবার দুপুরে সাব্বিরকে টাঙ্গাইল আদালতে হাজির করলে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেয়। আদালতের বিচারক চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শ্রী রুপম কুমার দাস সাব্বিরের জবানবন্দি রেকর্ড করেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানান, শেরপুর জেলার শ্রীবর্দী উপজেলার রানীশিুমুল ইউনিয়নের বালিজুডি গ্রামের আবু তালেবের ছেলে সাব্বির হোসেন পাশের রাঙ্গাজান গ্রামের সবুর উদ্দিনের মেয়ে আলেছা খাতুনকে তিন বছর আগে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। বিয়ের পর থেকে সাব্বিরের পরিবার আলেছা খাতুনকে নানাভাবে নির্যাতন করতে থাকে। গত আট মাস আগে তারা বাড়ি থেকে এসে মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই শিল্পাঞ্চল এলাকার সাউথ ইস্ট কারখানায় চাকরি নেয়। তারা কারখানার পাশে নাজিরপাড়া এলাকার আবু বক্করের ভাড়া বাড়িতে বসবাস করতেন। গত ৩ মার্চ সকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। একই দিন দুপুর পৌনে ২টার দিকে স্বামী সাব্বির স্ত্রী আলেছা খাতুনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে আলেছা খাতুনের চাচা ছোবাহান আলী ঘটনাস্থলে আসেন। ৪ মার্চ তিনি বাদী হয়ে সাব্বির হোসেনকে আসামি করে মির্জাপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন তিনি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মির্জাপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আলাউদ্দিন তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে গতকাল সোমবার রাতে টঙ্গী এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাব্বির হোসেনকে গ্রেপ্তার করে। আজ মঙ্গলবার আদালতে হাজির করলে বিচারক শ্রী রুপম কুমারের কাছে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেয় বলে জানিয়েছেন তিনি।

মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ রিজাউল হক জানান, দাম্পত্য কলহের জের ধরে স্বামী সাব্বির স্ত্রী আলেছাকে খুন করেছে বলে আদালতে স্বীকার করেছেন।



সাতদিনের সেরা