kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

এ যেন কল্পনার গণ্ডি পেরোনো এক অনন্য বাস্তবতা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২১ জুন, ২০২১ ০৯:১৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এ যেন কল্পনার গণ্ডি পেরোনো এক অনন্য বাস্তবতা

প্রায় ১০ বছর আগে স্বামী হারান মরিময় বেগম। তিন ছেলে ও দুই মেয়েকে নিয়ে কষ্টের সংসার। নিজ বাড়িতে থাকার কথা চিন্তা করা তো দূরের কথা দু’মুঠো খেয়ে বাঁচার চিন্তাই ঘুরপাক খেত দিনভর। মুজিববর্ষে সরকারের দেওয়া উপহারের পাকা বাড়ি পেয়ে মরিয়ম বেগমের খুশির শেষ নেই।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার সাহেবনগর এলাকার মরিয়ম বেগম শুধু নয়, জেলার আরো প্রায় সাত শ গৃহহীনের নতুন আবাস হয়েছে। তাঁদের চোখেমুখে এখন আনন্দের ছাপ। খুশিতে অনেকেই আত্মহারা। এ যেন কল্পনার গণ্ডি পেরোনো এক অনন্য বাস্তবতা।

উপজেলার আব্দুল্লাহপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মতে, নতুন বাড়ি পাওয়ার বিষয়টি তিনি কখনো কল্পনাও করতে পারেননি। এ জন্য তিনি প্রাণভরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করেন। আনন্দপুর গ্রামের হোটেল কর্মচারী হারুন হাওলাদার বলেন, ‘আমি খুব খুশি। ছেলে-মেয়ে নিয়ে কষ্টে ছিলাম। আমার কষ্টের দিন শেষ।’

গতকাল রবিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আশ্রয়ণ প্রকল্পের দ্বিতীয়ধাপের ঘর বুঝিয়ে দেওয়ার কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। ৬৮১টি ঘর বুঝিয়ে দেওয়া উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন উপজেলার অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলার সদর উপজেলার ১২৫টি, বিজয়নগরে ১৪৯টি, কসবায় ২০০টি, বাঞ্ছারামপুরে ৬০টি, আখাউড়ায় ৫০টি, সরাইলে ৩১টি, আশুগঞ্জে ২০টি, নাসিরনগরে ৩১টি, নবীনগরে ১৫টি পরিবার ঘর বুঝে পায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার বাছাই করে প্রত্যেককে ২ শতাংশ জমিতে ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। দুই কক্ষের এসব ঘর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৯০ হাজার টাকা। সব ঘরই একই নকশায় নির্মাণ করা হয়েছে। প্রথম ধাপে জেলার এক হাজার ৯১টি পরিবার ঘর বুঝে পায়।

আখাউড়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে এসব ঘর বুঝিয়ে দেওয়ার সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ভূঁইয়া, পৌর মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নূর-এ-আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মো. জয়নাল আবেদীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। নাসিরনগর উপজেলা পরিষদ চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য বি এম ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হালিমা খাতুনের সভাপতিত্বে ও এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান রাফিউদ্দিন আহমেদ। সরাইলে সিরাজুল ইসলাম অডিটরিয়ামে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আরিফুল হক মৃদুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম।



সাতদিনের সেরা