kalerkantho

বুধবার । ২০ শ্রাবণ ১৪২৮। ৪ আগস্ট ২০২১। ২৪ জিলহজ ১৪৪২

আবু ত্ব-হা আদনানকাণ্ডে চাকরি গেল বন্ধু সিয়ামের

অনলাইন ডেস্ক   

২১ জুন, ২০২১ ০৯:০৬ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আবু ত্ব-হা আদনানকাণ্ডে চাকরি গেল বন্ধু সিয়ামের

আবু ত্ব-হা আদনান ও সিয়াম ইবনে শরীফ।

নিখোঁজের আট দিন পর গত ১৮ জুন বাড়ি ফিরে এসেছেন আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান। ব্যক্তিগত কারণে তিনি এত দিন আত্মগোপনে ছিলেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। এদিকে আবু ত্ব-হা গাইবান্ধার ত্রিমোহনীতে যেই বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপন করেছিলেন বলে পুলিশ ও বন্ধুর মা দাবি করেছেন, আদনানকে বাসায় রেখে আত্মগোপনে থাকতে সহায়তা করার অপরাধে সেই বন্ধু সিয়াম ইবনে শরীফকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

ত্ব-হা তার দুই সঙ্গী ও গাড়িচালককে নিয়ে বন্ধু সিয়ামের গ্রামের বাড়ি আট দিন ধরে আত্মগোপনে ছিলেন। এ ঘটনার জের ধরে সিয়ামকে চাকরিচ্যুত করেছে একটি বেসরকারি মোবাইল ফোন কোম্পানি। সিয়াম রংপুরে ওই কম্পানিটির মানবসম্পদ (এইচআর) বিভাগে কর্মরত ছিলেন।

গতকাল রবিবার সিয়াম নিজেই তার চাকরি হারানোর বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। তিনি জানান, বন্ধু ত্ব-হা ইস্যুতে শনিবার (১৯ জুন) তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

সিয়াম বলেন, আমার বন্ধু ত্ব-হাসহ চারজন গাইবান্ধায় আমাদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিল, এটা আমাকে জানানো হয়নি। এ কারণে ত্ব-হার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদে আমি নিজেও উদ্বিগ্ন ছিলাম। অন্য বন্ধুবান্ধবদের মতো ত্ব-হার সন্ধানের দাবিতে আমিও মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলাম। পুলিশ ত্ব-হাকে উদ্ধারের পর জানলাম, সে আত্মগোপনে ছিল। সেটা নাকি আমাদের বাড়িতেই। আমার মা ত্ব-হাদের সেখানে লুকিয়ে থাকার ব্যাপারে আমাকে কিছু জানায়নি। অথচ এখন অভিযোগ করা হচ্ছে, আমি নাকি তাদের লুকিয়ে রেখে মানববন্ধন করেছি। এটা মিথ্যা অভিযোগ, আমি কিছুই জানতাম না।

মা কেন ত্ব-হাদের আশ্রয় দেওয়ার বিষয়টি জানাননি, এ প্রশ্নের উত্তরে সিয়াম বলেন, ত্ব-হা প্রায়ই আমাদের বাড়িতে যেত। সে আমার স্কুল-কলেজের ফ্রেন্ড। আমরা একসঙ্গে বেড়ে উঠেছি। আমাদের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ। ও নাকি আমাদের বাড়িতে গিয়ে আমার মাকে অনুরোধ করেছিল, তাদের আশ্রয় দেওয়ার বিষয়টি যেন আমার মা কাউকে না জানান।

সিয়ামের মা নিশাদ নাহার গণমাধ্যমকে জানান, ত্ব-হা ও তার সঙ্গীরা সাত দিন তাদের বাড়িতে ছিলেন, কিন্তু আশপাশের কেউ জানত না। এমনকি তার ছেলে সিয়ামও জানত না।

প্রসংগত, সপ্তাহখানেক নিখোঁজ থাকার পর গত ১৮ জুন সন্ধান পাওয়া যায় এই আলোচিত বক্তার। পরে তাকে রংপুর নগরের আবহাওয়া অফিস সংলগ্ন মাস্টারপাড়ায় তার শ্বশুরবাড়ি থেকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আবু ত্ব-হাকে তার শ্বশুর আজহারুল ইসলাম মণ্ডলের বাড়িতে ঢুকতে দেখেন তার এক প্রতিবেশী।

গত ১০ জুন দিবাগত রাত থেকে কোনো খোঁজ মিলছিল না আবু ত্ব-হা আদনানসহ তার দুই সঙ্গী আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিনের। সেদিন বিকেল ৪টার দিকে ওই তিনজনসহ আবু ত্ব-হা রংপুর থেকে ভাড়া করা একটি গাড়িতে ঢাকার পথে রওনা দেন। রাতে মোবাইল ফোনে সর্বশেষ কথা হলে তিনি সাভারে যাচ্ছেন বলে তার মাকে জানান। এরপর রাত ২টা ৩৬ মিনিটে স্ত্রীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হয় আদনানের। তিনি সাভার যাচ্ছেন বলেই জানান স্ত্রীকেও। তার পর থেকেই তার ফোন বন্ধ থাকায় আর যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। পরদিন বিকেলে রংপুর মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি থানায় জিডি করেন আবু ত্ব-হার মা আজেদা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ত্ব-হার মায়ের জিডির সূত্র ধরে পুলিশ অনুসন্ধান করছিল। আজকে গোপন সূত্রে খবর মেলে আবু তার । ত্ব-হা রংপুর নগরীর আবহাওয়া অফিস সংলগ্ন মাস্টারপাড়ায় তার শ্বশুরবাড়িতে প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে আছেন। সেই সংবাদ পেয়ে পুলিশ তাকে নিয়ে আসে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে তার অপর সঙ্গীদেরও সন্ধান পাওয়া যায়।

গাইবান্ধার ত্রিমোহনীতে বন্ধু সিয়ামের বাসায় ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন আবু ত্ব-হা আদনানসহ নিখোঁজ চারজন। বন্ধু বাসায় না থাকলেও তার মায়ের কাছে ছিলেন তারা। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কারণে ত্ব-হা আত্মগোপনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।



সাতদিনের সেরা