kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩ আগস্ট ২০২১। ২৩ জিলহজ ১৪৪২

ইউপি নির্বাচন

কালীগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৫, পিস্তলসহ আ. লীগ নেতা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

২০ জুন, ২০২১ ২০:৫৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কালীগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৫, পিস্তলসহ আ. লীগ নেতা গ্রেপ্তার

গাজীপুরের কালীগঞ্জে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই আওয়ামী লীগের পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ১৫জন আহত হয়েছে। রবিবার দুপুরে উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের গোল্লার টেক এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্রসহ এক আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুজ্জামান বরুনকে (৫১) আটক করেছে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক এবং আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক।

সংঘর্ষে আহতদের স্থানীয় ক্লিনিক ও হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ভোটের একদিন আগে সহিংসতার ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। 

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, জামালপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে ছিলেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন। কিন্তু দল মনোনয়ন দেয় বর্তমান চেয়ারম্যান  মো. ফারুক মাস্টারকে। মনোনয়ন বঞ্চিত আলমগীর হোসেন দলীয় প্রার্থী ফারুক মাস্টারের পক্ষে কাজ না করে বিদ্রোহী প্রার্থী খায়রুল আলমের পক্ষে নির্বাচনী কাজ করে আসছিলেন। এ নিয়ে রবিবার দুপুরে গোল্লার টেক বাজারে ফারুক মাস্টারের সমর্থকদের সাথে আলমগীর হোসেনের বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করা হলে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা আলমগীর হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান বরুন, সাইফুল ইসলামসহ উভয় পক্ষের অন্তত ১৫জন আহত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ওসি একে এম মিজানুল হক জানান, ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় আসাদুজ্জামান বরুনকে দুই রাউন্ড গুলি ও একটি পিস্তলসহ আটক করা হয়েছে। তিনি পুলিশ প্রহরায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 



সাতদিনের সেরা