kalerkantho

সোমবার । ১১ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৬ জুলাই ২০২১। ১৫ জিলহজ ১৪৪২

মাছ ধরার দেশি উপকরণ বেচাকেনার ধুম নবীনগরে

নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি    

১৯ জুন, ২০২১ ১৪:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাছ ধরার দেশি উপকরণ বেচাকেনার ধুম নবীনগরে

বর্ষা মানেই খাল-বিলে থৈ থৈ পানি; নদী-নালা খাল-বিল নতুন পানিতে টইটম্বুর। এ সময় বর্ষার পানিতে ছুটে আসে নানা প্রজাতির মাছ। তাই গ্রামাঞ্চলে নানা কৌশলে মাছ শিকার করা হয় এই সময়।

বাঁশ দিয়ে তৈরি আনটা, চাঁই, খৈলশুন (বৃত্তি), ভাঁইড় (চোকা) এ রকম মাছ ধরার উপকরণ বা ফাঁদ তৈরি ও  কেনাবেচার ধুম পড়েছে নবীনগরে। মাছ ধরার অপেক্ষাকৃত সহজ কৌশল হলো মাছ চলাচলের পথে এ ফাঁদ পেতে রাখা। দেশি মাছের স্বাদ নিতে গ্রামের খাল, বিল ও উন্মুক্ত জলাশয়ে এ ফাঁদ পেতে মাছ ধরেন গ্রামের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। তাই এখানকার হাট-বাজারগুলোতে এখন মাছ ধরার ফাঁদ কেনাবেচার ধুম পড়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার মাঝিয়ারা, শ্রীঘর বাজার, শ্যামগ্রাম, ভোলাচং, বাঙ্গরা বাজার, শিবপুর, বিটঘর , বাইশমৌজা প্রভৃতি হাট-বাজারগুলোতে মাছ ধরার এ দেশি  উপকরণগুলো বেশি বিক্রি হয়। এগুলো যারা তৈরি করেন তারা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বাঁশ কেনা, বাঁশ কাটা, শলাকা তৈরি, ফাঁদ বোনার কাজ করেন তাঁরা।

আনটা প্রস্তুতকারী জুয়েল মিয়া বলেন, এখন আনটা, চাঁই তৈরিতে আমরা ব্যস্ত। পরিবারের সবাই মিলে এই কাজ করি। এই আয় দিয়েই সংসার চলে। দেশি বাঁশ দিয়ে এসব উপকরণ তৈরি করা হয়।

আরেক প্রস্তুতকারী জাকির হোসেন বলেন, একটি ভালো বাঁশ থেকে তিনটি আনটা তৈরি করা যায়। প্রতিটি বিক্রি হয় ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত।

আনটা বা চাঁই প্রস্তুতকারী সুমন মিয়া, ইসু মিয়া, সুবল দাস জানান, একটি বড় বাঁশের দাম পড়ে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা। ধারালো দা দিয়ে বাঁশের শলাকা তৈরি করা হয়।  প্রতিটি শলাকা বা কাঠি নিখুঁতভাবে বুনন করে বেত বা সুতা  দিয়ে বেঁধে তৈরি করা হয় আনটা বা চাঁই নামক মাছের ফাঁদ। বাঁশ কেটে, শলাকা তৈরি করে একজন মানুষের পক্ষে দিনে তিনটি আনটা তৈরি করা সম্ভব।

উপজেলার টিয়ারা গ্রাম থেকে আনটা কিনতে আসা আক্কাস আলী বলেন, 'প্রতিবছর শখের বসে আমি তিন-চারটি আনটা কিনি। বাড়ির পাশে খালে বা নালায় এগুলো ব্যবহার করে চিংড়ি, পুঁটি, চান্দা, বৈচা, খৈলশা, ডানকানা, মলা, বাইম/গুতুম, শিং, টেংরা, ছোট টাকি ইত্যাদি মাছ ধরি। এতে বাজার থেকে আর মাছ কিনতে হয় না।'

বাইশমৌজা বাজারের ইজারাদার বলেন, বছরের এই সময় প্রতি সপ্তাহের হাটে চলে কেনাবেচার ধুম। প্র্রয়োজনের তুলনায় বাজারে আনটা বা চাঁইয়ের সরবরাহ কম থাকায় দাম একটু বেশি। কয়েক দিন পর সরবরাহ বাড়বে বলে জানান তিনি। 



সাতদিনের সেরা