kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

ছাত্রলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ : মেয়র মোশাররফকে প্রধান আসামি করে মামলা

নরসিংদী প্রতিনিধি   

১৮ জুন, ২০২১ ১৮:২২ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ছাত্রলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ : মেয়র মোশাররফকে প্রধান আসামি করে মামলা

মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন

মাধবদী থানা আওয়ামী লীগের অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে অতর্কিত হামলায় সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. জাকারিয়াসহ দুজন গুলিবিদ্ধের ঘটনায় মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেনকে প্রধান আসামি করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাকারিয়ার বড় ভাই আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন আব্দুল আহাদ (২৫), মোজাম্মেল মিয়া (৩৮), মাসুদ রানা ওরফে জুনিয়র মাসুদ (২৬), শাহিন মিয়া (২৮), আতাউর ভুঁইয়া (২৮), আকরাম হোসেন(২৮), সাকিব (২৪), নুর মোহাম্মদ (৩০), সেন্টু শীল (২৫) ও মনিরুজ্জামান ওরফে নাতি মনির (৪০)।

মামলার বিবরণীতে জানা গেছে, আগামী ২৩ জুন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সফল করার লক্ষ্যে বুধবার বিকেল ৪টায় স্থানীয় রমণী কমিউনিটি সেন্টারে নবগঠিত মাধবদী থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিএম তালেব হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক পীরজাদা কাজী মোহাম্মদ আলীসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান চলাকালে মাধবদী শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মাধবদী পৌরসভার মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিক ১০/১২ জন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক নিয়ে সভাস্থলে উপস্থিত হয়ে সভানুষ্ঠান বাধা প্রদান করেন। পরে সভার প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিসহ উপস্থিত নেতৃবৃন্দ সাংগঠনিক নিয়ম মেনেই সভা করা হচ্ছে জানিয়ে মেয়রকে চলে যেতে অনুরোধ করেন। পরে মেয়র অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে পরিণাম ভালো হবে না উপস্থিত জেলার নেতৃবৃন্দকে শাসিয়ে সভাস্থল ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে রাত পৌনে ৮টার দিকে অনুষ্ঠান শেষে নেতাকর্মীরা ফিরে যাওয়ার সময় মাধবদী পৌরসভা মোড়ে প্রথমে পাঁচদোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুম বিল্লাহকে পেয়ে তার উপর হামলা করে তার গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এ সময় তিনি গাড়ি থেকে বের হয়ে কোনোরকম পালিয়ে বাঁচেন। একইসময় সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও মাধবদী পৌরসভার সাবেক কমিশনার মো. জাকারিয়া ও তার চাচাতো ভাই আবুল কালাম পৌরসভা মার্কেটের সামনে দিয়ে যাওয়ার পথে মেয়র মোশাররফ হোসেন ও তাঁর লোকজন তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় মেয়র তার নিজস্ব পিস্তল থেকে জাকারিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি ছুঁড়লে তার ডান পায়ে বিদ্ধ হয়। এ সময় আবুল কালাম এগিয়ে আসলে মেয়র সমর্থক আব্দুল আহাদ তাকে লক্ষ্য করলে গুলি করলে তার বাম পায়ে বিদ্ধ হয়। পাশাপাশি অন্যরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে জাকারিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে মাথায় কোপ দিয়ে জখম করে। এসময় তাদেরকে বাঁচাতে মানিক ও জাহাঙ্গীর নামের দুই ব্যক্তি এগিয়ে আসলে তাদের মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নেওয়া হয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। গুলিবিদ্ধ জাকারিয়া ও আবুল কালাম বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে মেয়র মোশাররফ হোসেনের সমর্থক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মো. মোজাম্মেল মিয়া বাদী হয়ে পাল্টা অভিযোগ এনে জাকারিয়াসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন। তিনি মামলায় উল্লেখ করেন, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পৌরসভার সামনে জাকারিয়া ও তার বড় ভাই আনোয়ার হোসেন, মাসুদ রানা, মো. দোলোয়ার, শরীফ হোসেন, সুমন, আব্দুল হকসহ ১০/১২ জন সন্ত্রাসী বাদী মোজাম্মেল মিয়া ও তার সহযোগী মামুন মিয়ার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন চাকু দিয়ে মামুনকে আঘাত করে ও জাকারিয়া বাদিকে লক্ষ্য করে অস্ত্র দিয়ে গুলি করে। এ সময় বাদী মাটিতে শুয়ে পড়লে গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

মাধবদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দুজ্জামান মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব। 



সাতদিনের সেরা