kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

৪ দাবিতে আমরণ অনশনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১৩ জুন, ২০২১ ২১:৫২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৪ দাবিতে আমরণ অনশনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের (৪৬তম ব্যাচ) চূড়ান্ত পরীক্ষাসহ চার দাবিতে আমরণ অনশন করছেন শিক্ষার্থীরা। রবিবার (১৩ জুন) বিকাল তিনটায় ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ২৫ জন শিক্ষার্থী আমরণ অনশন শুরু করেন। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তারা অনশনে ছিলেন। বিভাগের পক্ষ থেকে একাধিক শিক্ষক এসে তাদেরকে বুঝিয়ে অনশন ভাঙানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

তাদের দাবিগুলো হলো, ঈদুল আজহার আগেই তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে; ১৪ জুন পরীক্ষার রুটিন প্রকাশ করতে হবে; ৩০ নভেম্বরের আগেই চতুর্থ বর্ষের সকল ক্লাস শেষ করতে হবে এবং চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা ডিসেম্বররে মধ্যে শেষ করতে হবে।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের আগেই স্নাতক (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের ক্লাস শেষ করে পরীক্ষা শুরু করার কথা ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে তা শুরু করা যায়নি। এরপর পাঁচ মাস আগে স্নাতক চতুর্থ বর্ষের ক্লাস শুরু করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এক নির্দেশনা থাকলেও সেটিও আমলে না নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে এই শিক্ষার্থীদেরকে ঘুরিয়েছেন বিভাগটির সভাপতি। সর্বশেষ দুই মাস আগে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার একটি পরিস্থিতি তৈরি হলে সেসময় সশরীরে পরীক্ষা নেওয়া প্রস্তুতি নিয়েছিল বিভাগটি, যদিও বিশ্ববিদ্যালয় না খোলায় সেটিও সম্ভব হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) এক নির্দেশনায় বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট অনলাইনেই বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধাত গ্রহণ করে বিভাগগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করে। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী বেশ কিছু বিভাগ এরই মধ্যে তৃতীয় বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষার রুটিন ও পরীক্ষা গ্রহণ করছে। ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগ সে নির্দেশনার বাস্তবায়ন না করেই উল্টো শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের জানিয়েছেন তারা এ বিষয়ে এখনও কোনো বিজ্ঞপ্তি পাননি।

এদিকে, রবিবার (১৩ জুন) বিভাগটির শিক্ষকদের একটি সভায় এই শিক্ষার্থীদের বিষয়ে আলোচনা হলেও তারা কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেননি। সভা শেষে শিক্ষার্থীরা সভাপতি ও পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা একজন অপরজনের কাছে যাওযার কথা বলেন। 

অনশনরত এক শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘আমরা আজকে তিন বছর ধরে তৃতীয় বর্ষেই আছি। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের শিক্ষা জীবন বলে কিছু থাকবে না। পরীক্ষা কিংবা চতুর্থ বর্ষের ক্লাস শুরু করতে বললেও আমাদের শিক্ষকরা বার বার বিভিন্ন অজুহাতে আমাদেরকে ঘুরিয়েছে। তারা আমাদেরকে কোনো গুরুত্ব দিচ্ছেন না। সর্বশেষ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশে বিভিন্ন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা নেওয়া শুরু করলেও আমাদের বিভাগ ঘুমাচ্ছে।’

শিক্ষার্থীরা বলছেন, বিভাগের শিক্ষকরা আজ মিটিং ও পরীক্ষা নেওয়ার আশ্বাস দিলেও আমরা বিভিন্নভাবে জানতে পেরেছি তারা এই মাসেও পরীক্ষা নিবেন না। কারণ তারা সিনিয়রদের নিয়ে ফিল্ড টুরে যাবেন।’

এ বিষয়ে পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ড. রাশেদ আবদুল্লাহ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদেরকে নির্দেশনা দিয়েছে গত ৭ জুন। আমরা সেটি পেয়েছি ওইদিন রাতে। এরপর আমরা আজ রবিবার মিটিং করে কিভাবে পরীক্ষা নেওয়া যায় সে সংক্রান্ত একটি গাইডলাইন তৈরি করেছি। এরপর পরীক্ষা কবে নেওয়া যায় আমরা সেটি তাদের জানাবো। এছাড়া আমরা তাদের আনঅফিসিয়াল তারিখ জানিয়েছি। এই মাসের শেষের দিকে পরীক্ষা আমরা নিবো।’

ভূতাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. সৈয়দা ফাহলিজা বেগম বলেন, ‘আজকে মিটিং হয়েছে। কাল পরীক্ষা কমিটির মিটিং হবে। তারপর আমরা রুটিন প্রকাশ করে তিন সপ্তাহের মধ্যে পরীক্ষা নিবো। কিন্তু শিক্ষার্থীরাতো আমাদের একটুও সময় দিচ্ছে না।’



সাতদিনের সেরা