kalerkantho

রবিবার । ১০ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৫ জুলাই ২০২১। ১৪ জিলহজ ১৪৪২

স্বামীকে পিটিয়ে হত্যার পর অসহায় নারীর ধানক্ষেতও নষ্ট করা হলো

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর    

১২ জুন, ২০২১ ০৭:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বামীকে পিটিয়ে হত্যার পর অসহায় নারীর ধানক্ষেতও নষ্ট করা হলো

রংপুরের মিঠাপুকুরে নিলুফা ইয়াসমিন নামে এক নারীর পাকা ধানক্ষেতে কীটনাশক ছিটিয়ে ফসল বিনষ্ট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্বামীর হত্যাকারীরাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে ওই নারী অভিযোগ করেছেন। জীবনের সবটুকু পুঁজি বিনিয়োগে করা ধানক্ষেত বিনষ্ট হওয়ায় চার সন্তান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই নারী। এ ঘটনায় শুক্রবার নিলুফা ইয়াসমিন স্থানীয় থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, উপজেলার কাফ্রিখাল ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের কৃষক সাইফুল ইসলামকে বাড়ির সীমানা প্রাচীর নিয়ে বিরোধে গত বছরের ১২ মে পিটিয়ে হত্যা করে তারই ভাই ও ভাবি। এ ঘটনায় নিহতের ভাই মশিয়ার, ভাবি ফেরদৌসি ও ভাইয়ের মেয়ে মৌসুমি আক্তারকে আসামি করে থানায় মামলা করেন নিহতের স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন। চার সন্তান নিয়ে স্বামীর বাড়িতেই অবস্থান করে জমি চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন নিলুফা। গত ছয় মাস আগে আসামীরা জামিনে বেরিয়ে আসেন। তারা মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদিকে হুমকি-ধমকি অব্যাহত রাখে। এমনকি প্রাণনাশের হুমকি দেয় আসামিরা।

চলতি মৌসুমে স্বামীর ১৬ শতক জমিতে বিআর ২৯ জাতের ধান চাষ করেন নিলুফা। ধান কাটার সময় হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে স্বামীর হত্যাকারী আসামিরাই বুধবার রাতে ধানক্ষেতে কীটনাশক ছিটিয়ে দেয়। এতে ধানক্ষেত পুড়ে যায়। স্বামীর হত্যা মামলায় স্বাক্ষী করায় তার ননদ মল্লিকা বেগমের ১২ শতক জমির ধানক্ষেতেও কীটনাশক ছিটিয়ে বিনষ্ট করে দেয় আসামিরা।

নিলুফা ইয়াসমিন বলেন, 'এক বছর আগে মোর স্বামী ধরি ওরা মারি ফেলাইছে। এখন মোক হুমকি দেওচে। ৪টা ছইল নিয়া স্বামীর জমিত আবাদ করি কোনো কষ্ট করি জীবন চলাওচো। শত্রুরা জমিত বিষ দিয়া ধানক্ষেত নষ্ট করি দেচে। এখন মুই ছইলগুলাক নিয়া কি খায়া বাঁচিম।’ এ ঘটনায় নিলুফা ও ননদ মল্লিকা বেগম থানায় পৃথকভাবে অভিযোগ দিয়েছেন।

মিঠাপুকুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাকির হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



সাতদিনের সেরা