kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দেওয়া নামে ইউএনও'র শ্যালকের দুর্নীতি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি   

১০ জুন, ২০২১ ২১:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর দেওয়া নামে ইউএনও'র শ্যালকের দুর্নীতি

অভিযুক্ত তানবিন হাসান।

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ভাতুরিয়া রামপুর গ্রামে আশ্রয়ণ প্রকল্পে সরকারি ঘরের প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ গেছে ইউএনও'র শ্যালক তানবিন হাসানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় তার সহযোগী আবুল কালাম আজাদকে পুলিশ আটক করলেও ইউএনো'র শ্যালক তানবিন পালিয়ে গেছেন। গতকাল বুধবার তানবিনকে বাদ দিয়ে আবুল কালাম আজাদকে আসামি করে বুধবার মামলা দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় ঠাকুরগাঁও হরিপুর উপজেলায় মোট ৯৩৬টি ঘর বরাদ্ধ হয়েছে। ঘর প্রতি নির্মাণ খরচ নির্ধারণ হয়েছে এক লাখ ৯০ হাজার টাকা। নীতিমালা অনুযায়ী, কোন ঠিকাদার ছাড়াই স্থানীয় ইউএনও নিজেই প্রকল্পের ঘর নির্মাণ করে দেবেন। এরই মধ্যে ৫৩৬টি ঘর নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে এবং বাকি ৪০০টি ঘর নির্মাণ কাজ চলমান। অভিযোগ রয়েছে, টাকা ছাড়া কাওকে ঘর দেওয়া হচ্ছে না।

ভুক্তভোগী মানুষেরা জানান, উপজেলার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ তদারকির দায়িত্বে ছিলেন হরিপুর উপজেলার ইউএনও আব্দুল করিমের শ্যালক তানবিন হাসান। তানবিন রামপুর গ্রামের অসহায় দরিদ্র সাধারণ মানুষকে ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এসব টাকা ইউএনও'র নাম ভাঙিয়ে আদায় করেছিল তার শ্যালক তানবিন ও তারই সহযোগী আবুল কালাম আজাদ। কিন্তু প্রকল্পের তালিকায় তাদের নাম না থাকায় গত মঙ্গলবার রাতে তানবিন ও আবুল কালামকে আটক করে রাখে স্থানীয়রা। তবে সুযোগ বুঝে তানবিন সেখান থেকে পালিয়ে যায়। পরে আবুল কালাম আজাদকে পুলিশে সোপর্দ করে ভুক্তভোগীরা।

হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী বলেন, এতে সরকারের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। উচ্চপর্যায়ে নিরপেক্ষ তদন্ত করা উচিত।

আবুল কালাম আজাদ জানান, ঘরের জন্য ইউএনও-এর শ্যালক তানবিনসহ এই টাকা নেওয়া হয়েছিল।

হরিপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল করিম বলেন, করোনার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শ্যালক তানবিন প্রকল্পের কাজ দেখাশোনা করছিলো। কোনো প্রকার আর্থিক অনিয়মকে প্রশয় দেওয়া হবে না। এ বিষয়ে আদালত ব্যবস্থাগ্রহণ করবেন।



সাতদিনের সেরা