kalerkantho

শনিবার । ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১২ জুন ২০২১। ৩০ শাওয়াল ১৪৪২

৩ শ্রমিকের প্রাণক্ষয়

রামগঞ্জে সেই ইটভাটা মালিকের ৬ মাসের জেল

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি    

১০ জুন, ২০২১ ১৯:৩০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রামগঞ্জে সেই ইটভাটা মালিকের ৬ মাসের জেল

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে অবৈধ সেই ইটভাটার মালিক আমির হোসেন ডিপজলকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি দুই ভাইসহ ৩ শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় জরিমানা করার পর ভাটাটি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্ত্র প্রশাসনের নির্দেশ অমান্য করে ভাটা চালু করার অপরাধে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এ সাজা দেওয়া হয়। 

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বিকেলে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়নের দেহলা গ্রামে দুপুরে অবৈধভাবে গড়ে তোলা মদিনা ব্রিকসে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহবুবুর রহমান নেতৃত্ব দেন। এ সময় ইটভাটাটিও গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, গত ২৩ মে ডিপজলের মালিকানাধীন মদিনা ব্রিকসের উঁচু চিমনি ধসে দুই ভাইসহ ৩ শ্রমিক মারা যায়। ওই রাতেই নিহতদের পরিবারের দায়ের করা মামলায় ডিপজল ও তার ভাটা ব্যবস্থাপক (ম্যানেজার) স্বপন মিয়াকে গ্রেপ্তার করে পরদিন কারাগারে পাঠায়। পরে তারা আদালত থেকে জামিনে বের হয়। ওই ঘটনায় আরো ১০ শ্রমিক আহত হয়েছেন। এ ছাড়া ২ বছর আগেও তার ভাটার চিমনি ধসে ৫ শ্রমিক আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে ঘটনাটির পর ২৫ মে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩ ভাটা মালিকের সাড়ে ৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্র জানায়, সহকারী কমিশনার মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে মদিনা ব্রিকসে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়। জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোছাইন আকন্দ ও রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাপ্তি চাকমার নির্দেশে অভিযানটি পরিচালনা করা হয়েছে। গত ২৩ মে দুই ভাইসহ তিন শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনায় ইটভাটাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে ডিপজল ফের ভাটাটি চালু করেছে। এ অপরাধে তার ৬ মাসের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়। তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ইটভাটাটিও গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অভিযান পরিচালনার সময় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

রামগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহবুবুর রহমান বলেন, প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে বন্ধ ইটভাটা ডিপজল আবারো চালু করেছে। এজন্য অভিযান চালিয়ে তার ইটভাটা ধ্বংস করা হয়েছে। ৬ মাসের কারাদণ্ড দিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।



সাতদিনের সেরা