kalerkantho

মঙ্গলবার । ১ আষাঢ় ১৪২৮। ১৫ জুন ২০২১। ৩ জিলকদ ১৪৪২

মাস গেলেও তদন্ত করার সময় পাননি নির্বাচন কর্মকর্তা!

মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি   

৭ জুন, ২০২১ ১৮:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাস গেলেও তদন্ত করার সময় পাননি নির্বাচন কর্মকর্তা!

হাওয়া আক্তার নেত্রোকোনা জেলার মদন উপজেলার ৬নম্বর তিয়শ্রী ইউনিয়নের ৪, ৫ এবং ৬নম্বর ওয়ার্ডের নারী ইউপি সদস্য। তবে তিনি সেখানকার ভোটার না বলে দাবি করছেন ওই ওয়ার্ডের এক বাসিন্দা আনহার আক্তার। তিনি হাওয়া আক্তারের বিরুদ্ধে (২০ এপ্রিল) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই অভিযোগটি তদন্ত করার জন্য উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হামিদ ইকবালকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু মাস পেরিয়ে গেলেও তিনি অভিযোগটি তদন্ত করার সময় পাননি।

জানা যায়, উপজেলার ৬নম্বর তিয়শ্রী ইউনিয়নের ৬নম্বর ওয়ার্ড কাওয়ালীবিন্নী গ্রামের ভোটার মোছা. হাওয়া আক্তার। ২০১৬ সালের অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তিনি ৪, ৫ ও ৬নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনে নির্বাচিত হন। এরপর থেকেই তিনি পরিষদে তার দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি তিনি ভোটার এলাকা পরিবর্তন করে উত্তর বালালী এলাকার ৮নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার হয়েছেন। স্থানান্তর হয়ে ৮নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার হওয়ার পরেও তিনি ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিনিধি হিসাবে ইউনিয়ন পরিষদে দায়িত্বে থেকে সকল ধরণের সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছেন। এ বিষয়ে কাওয়ালীবিন্নি গ্রামের কাছুম চৌধুরীর স্ত্রী আনহার আক্তার (২০ এপ্রিল) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। যারা এ বিষয় নিয়ে লিখিত অভিযোগ করেছে তাদেরকে দেখে নেওয়ার হুমকিও দেন ইউপি সদস্য হাওয়া আক্তর।

এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংকাদ প্রকাশ হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ ওই অভিযোগটি নীতিমালা অনুযায়ী তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ায় জন্য উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হামিদ ইকবালকে বলেন। কিন্তু ৪৭ দিনেও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ওই অভিযোগটি তদন্ত করার সময় পায়নি। এ নিয়ে অভিযোগকারীর মনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হামিদ ইকবাল(৭ জুন) সোমবার দুপুরে বলেন, অসুস্থার কারণে আমি আজ (সোমবার) অফিসে আসিনি। অভিযোগ তদন্ত করা সময়ের ব্যাপার। হাওয়া আক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগটি তদন্তাধীন আছে।



সাতদিনের সেরা