kalerkantho

সোমবার । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৪ জুন ২০২১। ২ জিলকদ ১৪৪২

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঢিলেঢালা ১৪ দিনের বিশেষ লকডাউন

আহসান হাবিব, চাঁপাইনবাবগঞ্জ   

৭ জুন, ২০২১ ০৫:১৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঢিলেঢালা ১৪ দিনের বিশেষ লকডাউন

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৫ মে থেকে চলা লকডাউনে বিধি-নিষেধ মানাতে ও ভাঙতে কখনো প্রশাসন কখনো মানুষের কড়াকড়ি ও অবহেলায় ফল আসছে না বিশেষ লকডাউনে। ১০ দিন পরেই যেখানে সংক্রমণ কমার কথা, সেখানে উল্টো চিত্র। আজ সোমবার শেষ হবে দ্বিতীয় দফা ঘোষণার ১৪ দিনের বিশেষ লকডাউন। জেলা প্রশাসন আরো মেয়াদ বাড়াবে কি না তা সোমবার বিকেলে গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানাবে।

সংক্রমণের সংখ্যা তেমন না কমলেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বললেন, ব্যবস্থা ও মানুষের মাঝে সচেতনতা সন্তোষজনক। রবিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর এলাকায় পরিদর্শনে এসে এ কথা বলেন তিনি।

সাধারণ মানুষ মনে করে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক রবিবার জেলায় যাওয়া-আসার সময় প্রতি স্থানে যেভাবে মানুষকে বিধি মানাতে প্রশাসন তৎপর ছিল, তা যদি ২৫ মে পর ৫ জুন পর্যন্ত এমন চিত্র থাকত, তবে সংক্রমণের হার কমে যেত। রবিবার সদর ও শিবগঞ্জে প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা দেখা গেলেও আগে এমনটি দেখা যায়নি।

লকডাউনে মানুষকে বাড়ির বাইরে যেতে প্রশাসনের কম তৎপরতাকে যেমন দায়ী করছেন, অনেকেই তেমনি মানুষের বিধি না মানার বেপরোয়া ভাবকেও দায়ী বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

জেলার মধ্যে শিবগঞ্জ উপজেলা বিনোদপুর, ছত্রাজিতপুর ও জালমাছমারী চতুরপুর এলাকায় সংক্রমণের হার বেশি বলে জানান এলাকাবাসী।

করোনা পরিস্থিতিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসায় ভোগান্তির অভিযোগ সাধারণ মানুষের তেমন বেশি না থাকলেও সাধারণ কোনো বিষয়ে চিকিৎসা নিতে হাসপাতালের দিকে ভয়ে পাঁ  না বাড়ানো মানুষের সংখ্যাও কম নয়।

আম ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকরা জানান, ভরা মৌসুম শুরু হচ্ছে। গতবার এ সময়ে সারা দেশে চলাচল প্রায় বন্ধ ও বিধি-নিষেধ থাকলেও আম কম উৎপাদন হয়েছিল, তাই তেমন প্রভাব বোঝা যায়নি, দামও পাওয়া গিয়েছিল বেশি। কিন্তু এবার গতবারের চেয়ে আম উৎপাদন বেশি হবে এবং অনেক ব্যাপারী এ সময়ে বড় আমের বাজারগুলোতে চলে আসে। এবার এখন পর্যন্ত এসেছে কম। তবে ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকরা বাগান থেকে বেশির ভাগ আম কিনে কুরিয়ারে বা ট্রাকে পাঠাতে কোনো সমস্যা না হওয়ায় প্রভাব তেমন না পড়লেও কয়েক দিন পর আরো বেশি আম নামা শুরু হলে তখন প্রভাব পড়বে।

সংক্রমণ রোধে ১২টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা এবং জেলায় ২৭টি পয়েন্টে পুলিশ চেকপোস্টে পুলিশ তৎপর বলে জানায় জেলা প্রশাসন। তার পরও মফস্বলে আড্ডা, যাতায়াত কমেনি একটুও। বাইরে যাওয়াদের কোনোভাবেই রোধ করতে পারছে না প্রশাসন। মুল সড়ক ও বাজারগুলোতে প্রশাসনে তৎপরতা অনেক ভালো দেখা গেলেও সাধারণ মানুষকে আটকাতে হিমশিম খাচ্ছে প্রশাসন। মূল সড়কে যাতায়াত কমিয়ে ছোট ও মফস্বলের সড়কে যাতায়ত ও চলাচল অনেক বেশি দেখা যায়।

আমের রাজধানীখ্যাত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জে গত দুই সপ্তাহে বেড়েছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা।



সাতদিনের সেরা