kalerkantho

সোমবার । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৪ জুন ২০২১। ২ জিলকদ ১৪৪২

বিসিএস পরীক্ষার্থী ইমন হত্যায় জড়িত আরেক নারী গ্রেপ্তার

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

৩১ মে, ২০২১ ০১:৫৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিসিএস পরীক্ষার্থী ইমন হত্যায় জড়িত আরেক নারী গ্রেপ্তার

মাদারীপুরের শিবচরের বিসিএস পরীক্ষার্থী ইসমাইল হোসেন ইমন হত্যায় জড়িত সাজেদা মারিয়া (২০) নামের আরেক নারীকে শরীয়তপুর থেকে গ্রেপ্তার করেছে জেলার গোয়েন্দা পুলিশ। গোপন ভিডিও ও ত্রিভুজ প্রেমের কারণেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত সাজেদা মারিয়া হত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত লাবনীর নতুন প্রেমিক কামরুজ্জামান কামরুলের আরেক প্রেমিকা। সে সানজিদা, তানজিলা নামেও নিজের পরিচয় দিয়ে থাকেন। 

পুলিশ জানায়, গত ১৫ মে শিবচরের চর-বাঁচামারা গ্রামের আড়িয়াল খাঁ নদ থেকে গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করা হয় বিসিএস পরীক্ষার্থী ইসমাইল হোসেন ইমনের। ইমন উপজেলার নিলখী ইউনিয়নের দক্ষিণ চরকামার কান্দি গ্রামের সেকান কাজীর ছেলে। ঈদের দিন শুক্রবার দুপুরে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে সে নিখোঁজ ছিল।  
পরিবারের পক্ষ থেকে একটি হত্যা মামলা করলে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় জেলার গোয়েন্দা পুলিশ। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও অধিকতর তদন্তে পুলিশ এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ইসমাইল হোসেন ইমনের প্রেমিকা লাবনী আক্তার, লাবনীর নতুন প্রেমিক মো. কামরুজ্জামান কামরুল, কামরুলের আরেক কথিত প্রেমিকা সাজেদা মারিয়া ও তাদের সহযোগী মেহেদী ফরাজীর সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পায়।

ডিবির ওসি মো. আল মামুন, দত্তাপাড়া ফাঁড়ির পরিদর্শক সঞ্জয় কুমার ঘোষ ও এসআই শরীফ আ. রশীদের নেতৃত্বে পুলিশের একাধিক টিম তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় গত মঙ্গলবার প্রেমিকা লাবনী আক্তার ও তার সহযোগী মেহেদী ফরাজীকে গ্রেপ্তার করে। 
গ্রেপ্তারের পর লাবনী হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। এর পর ডিবি পুলিশের একটি দল শনিবার বিকেলে শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার পাইনপাড়া মাঝিকান্দি গ্রামে অভিযান চালিয়ে নিজ বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত কামরুজ্জামানের কথিত প্রেমিকা সাজেদা মারিয়াকে (২০) গ্রেপ্তার করে। 
আসামিকে গ্রেপ্তারের পর আদালতে তুলে ৭ দিনের রিমান্ড দাবি করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত সাজেদা মারিয়া শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পাইনপাড়া মাঝিকান্দি গ্রামের শাজাহান শেখের মেয়ে। 

মাদারীপুর গোয়েন্দা পুলিশের ওসি মো. আল মামুন বলেন, আমরা তদন্তে হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৪ জনের সম্পৃক্ততা পাই। ইমনের প্রেমিকা লাবনী ও তার এক সহযোগী মেহেদীকে আগেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের দেওয়া তথ্যমতে শরীয়তপুরের জাজিরার মাঝিকান্দি থেকে সাজেদা মারিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মারিয়া লাবনীর নতুন প্রেমিক কামরুজ্জামানের আরেক প্রেমিকা। কামরুজ্জামানকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। মূলত মোবাইলে গোপন ভিডিও ও ত্রিভুজ প্রেমের কারণেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। 



সাতদিনের সেরা