kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

আমগাছের হেলে পড়া ডাল কাটা নিয়ে তর্ক, কুপিয়ে চাচাতো ভাইকে হত্যা

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ    

২৫ মে, ২০২১ ১৬:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আমগাছের হেলে পড়া ডাল কাটা নিয়ে তর্ক, কুপিয়ে চাচাতো ভাইকে হত্যা

নিহত সাদ্দাম

সীমানা বিরোধের জের এবং বাড়ির পাশে একটি আমগাছের হেলে পড়া ডাল কাটা নিয়ে তর্ক-বিতর্কে চাচাতো ভাইয়ের রামদার কোপে খুন হয়েছেন অনুজ সাদ্দাম। এ ঘটনায় পুলিশ গতকাল সোমবার রাতে ও আজ মঙ্গলবার সকালে দুই নারীসহ চারজনকে আটক করেছে। আজ ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। নান্দাইল উপজেলার খারুয়া ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্র, পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, ওই গ্রামের দুই ভাই মৃত রুসম উদ্দিন আর আছম উদ্দিনের পরিবারের মাঝে দীর্ঘদিন ধরে বাড়ির পাশের প্রায় দুই হাত পরিমাপের জায়গা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।  রুসম উদ্দিনের ছেলে সোহেল ও আছম উদ্দিনের ছেলে জিয়াউর রহমানের মধ্যে এ নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। এ বিরোধ মীমাংসা করার জন্য এলাকার ইউপি সদস্য মো. হালিম গত শুক্রবার একটি সালিস ডেকেছিলেন। তারা সবাই সালিসের ফলাফলের অপেক্ষা করছিলেন। এর মধ্যে গত সোমবার আমগাছের একটি হেলে পড়া ডাল কাটা হয়। ডালটি আমসহ চাচাতো ভাই সোহেলদের খড়ের গাদার ওপর গিয়ে পড়ে। এ নিয়ে সন্ধ্যায় সোহেল ঘটনাস্থলে এসে তাদের সবাইকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকেন। 

নিহতের ভাই জিয়াউর রহমান জানান, গালিগালাজ শুনে তার ছোট ভাই সাদ্দাম হোসেন (২৮) সশা ক্ষেত থেকে এ গালাগালি না করার জন্য সোহেলকে অনুরোধ করেন। এ সময় তিনি সাদ্দামকে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়েও নিয়ে যান। কিন্তু কিছুক্ষণ পর সোহেল মিয়া (৩২) বড় একটি রামদা নিয়ে আসেন। তখন উঠোনে দাঁড়িয়ে ছিলেন সাদ্দাম। সোহেল সাদ্দামের ঘাড় বরাবর কোপ মারেন। এ দৃশ্য দেখতে পেয়ে দৌড়ে ভাইকে বাঁচাতে ছুটে যান জিয়াউর। কিন্তু সাদ্দাম কোপ খেয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

এ বিষয়ে নান্দাইল থানার ওসি মিজানুর রহমান আকন্দ বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চারজনকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা