kalerkantho

সোমবার । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৪ জুন ২০২১। ২ জিলকদ ১৪৪২

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব : এমপির আল্টিমেটামেও মামলা নেয়নি পুলিশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০২১ ০৮:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব : এমপির আল্টিমেটামেও মামলা নেয়নি পুলিশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় টানা তিন দিনের তাণ্ডবের ঘটনায় হেফাজতে ইসলামের জেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সরাসরি লিখিত অভিযোগ এনেছিলেন সংসদ সদস্য এবং এটিই ছিল নেতাদের বিরুদ্ধে প্রথম কোনো লিখিত অভিযোগ। তবে এমপির দেওয়া অভিযোগ গত তিন সপ্তাহেও সদর থানায় মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়নি। এ অবস্থায় ২৪ মের মধ্যে মামলা নিতে এমপি মোকতাদির চৌধুরী আল্টিমেটাম দেন। তবে ওই সময়ের মধ্যেও মামলা নথিভুক্ত করেনি পুলিশ। যে কারণে এমপিকে আদালতের দ্বারস্থ হতে হচ্ছে।

তবে কখন তিনি আদালতে মামলা করবেন সেটি নিশ্চিত করা যায়নি। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার সোমবার সন্ধ্যায় জানান, অভিযোগ ও পরবর্তী সময়ে এমপির আল্টিমেটাম বিষয়ে তাদের সমর্থন আছে। তবে কখন তিনি আদালতে মামলা করবেন সে বিষয়টি নিশ্চিত হতে পারিনি। মোকতাদির চৌধুরীর ফোনে বিকেলে কল করা হলেও রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী মামলা নেওয়ার জন্য তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে আল্টিমেটাম দেন। গত ১ মে দায়ের করা মামলাটি ২৪ মের মধ্যে নথিভুক্ত না হলে আদালতে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি শনিবার রাতে ফেসবুকে দেওয়া স্ট্যাটাসটি আল্টমেটাম বলেও পোস্টে উল্লেখ করেন। এদিকে, পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী আল্টিমেটামের সময় অনুযায়ী মামলা নথিভুক্ত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। কেননা পুলিশ চাইছে সিআইডির মতামতের ওপর ভিত্তি করে মামলাটি নিতে। কিন্তু এখন পর্যন্ত সিআইডি’র কোনো মতামত এসে পৌঁছায়নি।

প্রসংগত হেফাজতের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির সভাপতি মাওলানা সাজিদুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মুফতি মুবারক উল্লাহসহ ১৪ জনের নাম উল্লখে করে অজ্ঞাত আরো ১০ জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে অভিযোগ দেন মোকতাদির চৌধুরী। তাঁর পক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল জব্বার মামুন অভিযোগটি জমা দেন। হেফাজতের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে এটিই ছিল সরাসরি কোনো অভিযোগ।

এতে অভিযোগ করা হয়, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। তারা সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র ও পরকিল্পনার অংশ হিসেবে আগ্নেয়াস্ত্র, গানপাউডারসহ বিভিন্ন দাহ্য পদার্থ ব্যবহার করে ক্ষতিসাধন করে। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে তারা তাণ্ডবে উসকানি দেয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এমরানুল ইসলাম জানান, ফেসবুকের লিংকগুলো সিআইডির কাছে পাঠানো হয়েছে। এসব লিংকের মাধ্যমে উসকানি দেওয়া হয়েছিল কি না সে বিষয়ে মতামত পেলে অভিযোগটি মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হবে। তবে সোমবার বিকেল নাগাদ এ বিষয়ে কোনো মতামত পাওয়া যায়নি। দ্রুত মতামত পাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে কখন মতামত পাওয়া যাবে সেটা নিশ্চিত নয়।



সাতদিনের সেরা