kalerkantho

বুধবার । ২ আষাঢ় ১৪২৮। ১৬ জুন ২০২১। ৪ জিলকদ ১৪৪২

মাদক উদ্ধারে এসে বিপাকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ৬ কর্মকর্তা

দেবীদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৯ মে, ২০২১ ২১:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাদক উদ্ধারে এসে বিপাকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ৬ কর্মকর্তা

কুমিল্লার দেবীদ্বারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ৬ সদস্যের একটি দল অভিযান চালাতে গিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটিয়েছেন। অভিযানে রাসেল নামে এক যুবকের ঘরে তল্লাশি চালিয়ে মাদক উদ্ধার এবং ৬ হাজার টাকা আদায়ের ঘটনায় স্থানীয়রা তাদের ভুয়া ডিবি পুলিশ সন্দেহ করে গণধোলাই দেয়। পরে দেবীদ্বার থানা পুলিশ হেফাজত থেকে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা আটক ৬ সদস্যকে নিয়ে যাওয়ার কথা থাকলেও সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত তাদের কেউ নিতে আসেনি।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলার জাফরগঞ্জ গোমতী নদীর ভেরীবাঁধ সংলগ্ন গোদারাঘাট মীর বাড়ির মৃত বজলু মিয়ার বাড়িতে।

স্থানীয়রা জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কুমিল্লা কার্যালয়ের পরিদর্শক আবু বকর ছিদ্দিক, গাড়িচালক মো. রফিকুল ইসলাম, সিপাই মো. শরিফুল ইসলাম, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) উত্তম বরন দেবনাথ, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবুল কাসেম, সিপাই মিঠুন চন্দ্র রবি দাসসহ ৬ সদস্যের একটি দল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের স্টিকার লাগানো একটি জিপ নিয়ে জাফরগঞ্জ বাজারে আসেন। পরে তারা মো. রাসেল ইসলামকে খোঁজ করেন। তাকে না পেয়ে তার বৃদ্ধা মা রাফিয়া বেগম ও তার বোন ময়না আক্তারকে চাপ দিতে থাকেন রাসেলকে উদ্ধার করে দিতে। এ সময় তারা ঘরে অভিযান চালিয়ে কয়েক বোতল মদ ও কিছু ইয়াবা খুঁজে পান।

স্থানীয়রা আরো জানান, উপস্থিত লোকজন তাদের ভুয়া ডিবির লোক মনে করে বেধরক মারধর করতে থাকেন। এ সময় ৩ জন পালিয়ে যান। স্থানীয় কিছু লোক এসে জনরোষ থেকে বাকি ৩ জনকে উদ্ধার করে জাফরগঞ্জ গ্রামের পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বাড়িতে নিয়ে যান।

দেবীদ্বার থানার ওসি মো. আরিফুর রহমান এবং বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর রেলওয়ে পুলিশের নিরাপত্তা প্রধান ডিআইজি মো. শাহ আলমের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

দেবীদ্বার-ব্রাহ্মণপাড়া সার্কেলের এএসপি মো. আমিরুল্লাহ বলেন, স্থানীয়দের সাথে ভুল বুঝাবুঝিতে এমনটা ঘটেছে।



সাতদিনের সেরা