kalerkantho

বুধবার । ২ আষাঢ় ১৪২৮। ১৬ জুন ২০২১। ৪ জিলকদ ১৪৪২

মোবাইলে ভিডিও করা নিয়ে মারামারি, হাসপাতালে ৫ নারী

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

১৭ মে, ২০২১ ১৮:৪৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মোবাইলে ভিডিও করা নিয়ে মারামারি, হাসপাতালে ৫ নারী

যশোরের মণিরামপুরে মোবাইলে ভিডিও করা নিয়ে মারামারির ঘটনায় অন্তত ৭ জন আহত হয়েছেন। সোমবার সকালে উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের তেঁতুলিয়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। এতে আহত হয়ে দুইপক্ষের পাঁচ নারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

আহতরা হলেন, ওই গ্রামের মোস্তফা বিশ্বাসের স্ত্রী নাজমা বেগম (৪০) ও তাদের মেয়ে হাফিজা খাতুন (২২)। তেঁতুলিয়া গ্রামের ইসহাক দফাদারের স্ত্রী আমিরুন্নেছা (৫০), তাদের দুই মেয়ে রহিমা খাতুন ৩২) ও ফাতিমা খাতুন (২৫)।

এ বিষয়ে মোস্তফা বিশ্বাস বলেন, ফাতিমার স্বামীর একটি মাইক্রোবাসে ঢিল ছোঁড়া নিয়ে পাড়ার মসজিদের মাঠে ওরা নিজেরা গণ্ডগোল করছিল। আমি পকেট থেকে মোবাইল বের করে গণ্ডগোলের ভিডিও করতে চাই। সেই সময় ফাতিমার ভাই আব্দুল্লাহ (২৫) আমার মোবাইল কেড়ে নিয়ে ছুঁড়ে মারেন। প্রতিবাদ করায় আব্দুল্লাহ ও তাদের ভাগনে মেহেদী হাসান (১৬) হামলা চালিয়ে আমাকে, আমার স্ত্রী নাজমা বেগম ও দুই মেয়েকে মারপিট করে।

এদিকে,ফাতিমা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, আমার ভাগনে আলিফ আমাদের মাইক্রোবাসে ঢিল মারে। এই নিয়ে আমরা নিজেরা চিল্লাফাল্লা করছিলাম। ওই সময় মোস্তফা নিজের মোবাইলে ভিডিও করছিলেন। আমরা প্রতিবাদ করায় ওরা আমার মা, বোনসহ আমাকে মারপিট করেন।

মণিরামপুর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. আলমামুন জুয়েল বলেন, মারামারির ঘটনায় হাসপাতালে ভর্তি পাঁচ জনের অবস্থা ভাল। তাদের চিকিৎসা চলছে।

মণিরামপুর থানার ডিউটি অফিসার এএসআই মিরা খাতুন বলেন, মারামারির ঘটনায় থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেননি।



সাতদিনের সেরা