kalerkantho

শুক্রবার । ১১ আষাঢ় ১৪২৮। ২৫ জুন ২০২১। ১৩ জিলকদ ১৪৪২

‘আওয়ামী লীগ সুকৌশলে কথা বলার অধিকার হরণ করেছে’

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি    

১৬ মে, ২০২১ ২০:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘আওয়ামী লীগ সুকৌশলে কথা বলার অধিকার হরণ করেছে’

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে সুকৌশলে মানুষের কথা বলার অধিকার হরণ করেছে এবং রাষ্ট্রের আইন-আদালতসহ সকল প্রতিষ্ঠানগুলোকে দখল করে নিয়েছে। ভুয়া নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ একদলীয় একটি পার্লামেন্ট তৈরি করেছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ প্রশাসনকে দলীয়করণ করেছে এবং রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠানকে আওয়ামী লীগ তাদের করে ফেলেছে। ফলে বাংলাদেশে গণতন্ত্র বলতে আর কিছুই নেই, একটা ভয় ও ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ। ফ্যাসিবাদের প্রধান হাতিয়ার হলো ভয়ভীতি তৈরি করে দেওয়া যেটা আওয়ামী লীগ করেছে। 

মির্জা ফখরুল রবিবার বিকালে তার নিজ জেলা ঠাকুরগাঁও হাওলাদার কমিউনিটি সেন্টারে জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের আইনজীবীদের সঙ্গে মতবিনিময়সভায় এসব কথা বলেন। এসময় জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সহসভাপতি আল মামুন, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফসহ বিএনপি সমর্থীত আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। 

এসময় মির্জা ফখরুল আরো বলেন, যারা একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন প্রতিষ্ঠা করে তারা কোনো রকমের ভিন্নমত সহ্য করতে পারে না। তারা এক এক করে সকল প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করেছে। আইনের শাসনকে তারা সবচেয়ে বেশি আঘাত করেছে। 

আওয়ামী লীগ নিজেদের স্বাধীনতার পক্ষের ও চেতনার শক্তি দাবি করলেও তারাই স্বাধীনতার সমস্ত আশা-আকাঙ্ক্ষা পায়ে পিষে ধ্বংস করেছে। ১৯৭২-এর সংবিধান ভেঙে দিয়ে প্রথমে জরুরি অবস্থা আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন ও সর্বশেষ সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলোকে নিষিদ্ধ করে দিয়ে বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিল। 

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আওয়ামী লীগ সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছে। সামাজিক মাধ্যমে কেউ কিছু লিখলে তা সরকারের বিপক্ষে গেলেই সাংবাদিক, শিশু ও গৃহবধূসহ সকলকেই আইনের আওতায় নিয়ে কারাগারে দেওয়া হচ্ছে। 

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, আওয়ামী লীগ হাইব্রিট রিজিম পদ্ধতিতে নিজেদের মতো করে গণতন্ত্র ও নির্বাচনকে ব্যবহার করেছে। তারা কর্তৃত্ববাদী ও স্বৈরাচারী সরকার প্রতিষ্ঠা করে তারাই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছে। বাংলাদেশ আজকে সেই জায়গায় এসে পড়েছে, যেখানে গণতন্ত্র ও মানুষের অধিকার বলতে কিছু নেই।



সাতদিনের সেরা