kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

ফুলপুরে ৩৫০ পরিবার পেল বসুন্ধরার উপহার

ফুলপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১১ মে, ২০২১ ১৯:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফুলপুরে ৩৫০ পরিবার পেল বসুন্ধরার উপহার

ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার রুপসী ইউনিয়নের বিধবা আছিয়া খাতুন (৬৫)। স্বামী ফজর আলী মারা গেছেন ১০ বছর পূর্বে। নিঃসন্তান আছিয়া খাতুন ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করে। সংসারের আপন বলতে কেউ নেই। দির্ঘদিন ধরে শয্যাশায়ী। নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে সাহায্যর জন্য দূরে কোথাও যেতে পারেন না। তাছাড়া করোনা সময়ে বাসাবাড়িতে আগের মত সাহায্যও নেই। বসুন্ধরার ঈদ উপহার পেয়ে জানালেন তার মানবেতর জীবন-যাপনের কথা। 

তিনি বলেন, 'এই দুঃখের দিনে বসুন্ধরা আমাকে কত জিনিস দিইয়্যা দিছে। অহন কয়টা দিন ভালু চলমু। ঈদের দিন মনটা ভালো থাকবু, বসুন্ধরার লাইগ্যা আল্লাহর কাছে দোয়া করমু।

বসুন্ধরার ঈদ উপহার নিতে এসে প্রতিবন্ধী চাঁন মিয়া বলেন, আমার জীবনে এ রকম কষ্টের সম্মুখীন হতে হয়নি। ট্যাহা না থাহায় কোনো দোকানে বাকীও দেয় না মোদের। আমরার তো ঈদের সেমাই খাওনের মন চায়। ছেলে-মেয়েরা মুখের দিকে থাকিয়ে থাকে। যাই হোক আল্লাহ মিল্যাইয়্যা দিলো। 

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ফুলপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজ মাঠে প্রতিবন্ধী, বিধবা, গৃহকর্মী, হোটেল শ্রমিক, দোকানের কর্মচারী, ভিক্ষুক, রিকশাচালক, পত্রিকার হকার, পুরোহিত, ছিন্নমূল মানুষের মাঝে ইদ উপহার বিতরণ করেছে। 

এদিকে, ফুলপুর পৌর শহর থেকে দুই কিলোমিটার দূরে নগুয়া বাজার সংলগ্ন 'শেখ হাসিনা পল্লী'তে ইদ উপহার দিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। পল্লীর ৪৪টি পরিবারের মাঝে এই উপহার দেওয়া হয়। ঘর পাওয়ার পর এটাই তাদের পাওয়া প্রথম উপহার বলে জানান পল্লীবাসী। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এসব ঈদ উপহার তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। করোনার স্বাস্থ্যবিধি মেনে বসুন্ধরার ঈদ উপহার দেওয়ার আগে সবাইকে মাস্ক বিতরণ করা হয়।

এ উপহার বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউল করীম রাসেল, ওসি ইমারত হোসেন গাজী, জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল খালেক, শুভসংঘের উপদেষ্টা কৃষিবিদ কামরুল হাসান কামু, উপদেষ্টা মহিলা কলেজেরে প্রভাষক শাফায়েত জামিল সাজু, শুভসংঘের সভাপতি আশরাফ হোসাইন, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান (পান্না), ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমসহ শুভসংঘের সদস্যরা। 

ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও শীতেষ চন্দ্র সরকার বসুন্ধরার মানবিক কাজের প্রশংসা করে  বলেন, এমন একটি শিল্পগ্রুপ অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো মানে তাদের উপকারে আসা। তিনি বসুন্ধরাকে ধন্যবাদ জানান। 

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউল করিম রাসেল বলেন, করোনায় বসুন্ধরা গ্রুপ সারা দেশের মত ফুলপুরেও অসহায়দের মুখে হাসি ফোটাল। শুভসংঘের প্রশংসা করে তিনি বলেন, শুভসংঘের প্রতিটি কাজে আমাকে পাবেন। শুভসংঘের কার্যক্রম খুবই ভালো। 

ওসি ইমারত হোসেন গাজী বলেন, ঈদ উপহার পাওয়া প্রতিটি মানুষের মাঝে ছিল অভাবের চাপ। শুভসংঘ কত সুন্দর করে এসব অসহায়দের তালিকা তৈরি করে ৩৫০ জনের মাঝে তা বিতরণ করলো যা প্রশংসার দাবিদার।



সাতদিনের সেরা