kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

ভূমি অফিসের দাবি খাস জমি

ফুলতলার তিন শতাধিক ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ নোটিশে ক্ষোভ

খুলনা অফিস   

১০ মে, ২০২১ ১৫:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফুলতলার তিন শতাধিক ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ নোটিশে ক্ষোভ

খুলনার ফুলতলার বাজারের তিন শতাধিক ব্যবসায়ীর দোকানপাট ও স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার নোটিশের প্রতিবাদে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাজার বণিক কল্যাণ সোসাইটি।

তারা বলেছেন, ভূমি উন্নয়ন কর দিয়ে এসব ব্যবসায়ীরা সিএস, আরএস, এসএ রেকর্ড অনুযায়ী বাজারের জমি ব্যবহার করছে। কিন্তু আকষ্মিকভাবে ভূমি অফিস উচ্ছেদ নোটিশ দেওয়ায় হতবাক হয়ে পড়েছেন। তবে দখল করা জমি ব্যক্তিমালিকানাধীন নয়, খাস জমি বলে দাবি করেছেন স্থানীয় ভূমি দপ্তর।

আজ সোমবার বেলা ১২টায় ফুলতলা বাজার বণিক কল্যাণ সোসাইটির ঊদ্যোগে তাদের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সোসাইটির সভাপতি এস রবিন বসু।

তিনি বলেন, ফুলতলা বাজার শতাধিক বছরের পুরোনো ও ঐতিহ্যবাহী। এখানে ফুলতলা ও অভয়নগর উপজেলার প্রায় ৫ হাজার ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন সুনামের সাথে ব্যবসা করছেন। যাদের মধ্যে অধিকাংশ দোকানদারের পৈত্রিকসূত্রে সিএস রেকর্ডভুক্ত জমি রয়েছে। আবার অনেকে সিএস, এসএ, আরএস রেকর্ডভুক্ত জমি আছে; যারা নিয়মিত ভূমি উন্নয়ন করও পরিশোধ করে থাকেন। গত ২৮ এপ্রিল বাজারের আনুমানিক ৩০০ ব্যবসায়ীকে সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী বিশ্বাস স্বাক্ষরিত এক নোটিশ প্রদান করা হয়। যাতে ৭ দিনের মধ্যে ৮.৮৬ একর জমির উপর স্থাপিত ভবন ও দোকানপাট সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। এ ছাড়াও উপজেলা প্রশাসন ফুলতলা বাজারের তহশীল সড়কে বদরুল আলমের মুদি মালামালের দোকান ৬ মাস সিলগালা করে রেখেছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসনের নিকট বণিক কল্যাণ সোসাইটির কর্মকর্তারা কয়েকবার ধর্না দিয়েও তার সুফল মেলেনি। করোনা মহামারীতে ব্যবসায়ীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ও ব্যাংকের দায়-দেনায় জর্জরিত। অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে অর্ধহারে অনাহারে দিন অতিবাহিত করছেন। অবিলম্বে এ সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার না হলে বাজারের ৫ সহস্রাধিক ব্যবসায়ী কঠোর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতা মো. আসলাম খান, বণিক কল্যাণ সোসাইটির সহ-সভাপতি এস এম মোস্তাফিজুর রহমান, আজিজুল হক ফারাজী, সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক মনির হাসান টিটো, গৌর হরি দাস, শহীদ মোড়ল, মাহাবুব আলম মিঠু, তারেক হাসান নাইস, রকিবুল ইসলাম, মো. আবুল খায়ের, কবির জমাদ্দার, দুলাল অধিকারী, আ. রহমান মিলন, রমেশ কুন্ডু প্রমুখ।

অবশ্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলী বিশ্বাস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ফুলতলা বাজারের ওই জমি খাস খতিয়ানভুক্ত। মাত্র ৫ জন ব্যবসায়ী কিছু জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। খুলনা জেলা প্রশাসকের নির্দেশে যাচাই-বাছাই শেষে অবৈধ দখলদারদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’



সাতদিনের সেরা