kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

'বসুন্ধরার উপহারে আমরা খুব খুশি'

নিজস্ব প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

৯ মে, ২০২১ ১৯:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'বসুন্ধরার উপহারে আমরা খুব খুশি'

সালেহা খাতুনের বয়স ৮০ বছর। কষ্টের জীবন। বসুন্ধরার খাদ্য উপহার পাওয়ার জন্য তিনি একটি স্লিপ পেয়েছিলেন স্থানীয় সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মো. শফিকুল ইসলাম শফিকের পক্ষ থেকে। সবার আগে এ বয়োবৃদ্ধাকে বসুন্ধরার পক্ষ থেকে খাদ্য উপহার তুলে দেওয়া হয়। উপহার পেয়ে বাড়ি যাওয়ার সময় তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'বাজান আমি খুব খুশি। বসুন্ধরার এমন উপহারে আমরা খুব খুশি।'

আজ রবিবার বিকেলে নগরীর ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে বসুন্ধরার খাদ্য উপহার তুলে দেন ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান। পুরো কাজটি সুষ্ঠুভাবে তদারকির দায়িত্ব পালন করেন সিটি করপোরেশনের ২৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিল শফিকুল ইসলাম শফিক।

অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান বলেন, করোনাকালে বসুন্ধরার এমন সহযোগিতার কথা মানুষ মনে রাখবে। বসুন্ধরার এমন মহতী উদ্যোগ ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশা করেন। 

সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম বলেন, তার এলাকাটি পশ্চাৎপদ। এলাকাতে অরেক গরিব মানুষ আছে। আজ তাদের পাশে বসুন্ধরা গ্রুপ দাঁড়িয়েছে। এ জন্য তিনি বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। 

বসুন্ধরার ঈদ উপহার বিতরণে যারা সহযোগিতা করেছেন তারা হলেন- এম এ হাসিম, রাজা, সিয়াম, জিয়া, সেলিম, আদম, বাচ্চু, রবি, আনোয়ার, মারুফ, ইসমাইল, রনি, আলী  খোকন মিয়া প্রমুখ। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ আয়োজনটিতে সার্বিক সহায়তা করে।



সাতদিনের সেরা