kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

'সাধ্যের মধ্যে বাজার' বসিয়ে ইউএনওর মানবিক উদ্যোগ

দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি    

৬ মে, ২০২১ ২১:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'সাধ্যের মধ্যে বাজার' বসিয়ে ইউএনওর মানবিক উদ্যোগ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্বল্প আয়ের অসহায় গরিব মানুষের জন্য এক ব্যতিক্রমী বাজার চালু  করা হয়েছে। এই বাজার থেকে নিম্ন আয়ের সাধারণ মানুষ বাজারের নির্ধারিত দামের চেয়ে অর্ধেক দামে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ক্রয় করতে পারছেন। এই বাজারের নামকরণ করা হয়েছে 'সাধ্যের মধ্যে বাজার'। এই বাজার প্রতিদিন দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত আগামী ঈদের আদের দিন পর্যন্ত  চলবে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা কমপ্লেক্স মাঠে এই বাজার উদ্বোধন করেন দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ কে এম আব্দুল্লাহ বিন রশিদ।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দেওয়ানগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আসাদুজ্জামান, উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার মেহেরউল্লাহ এবং উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. বেলাল হোসেন।

খেটে খাওয়া অসহায় মানুষ স্বাস্থ্যবিধি ও শারীরিক দূরত্ব মেনে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে। উপজেলা মাঠে স্থাপিত এই অস্থায়ী বাজারে গিয়ে দেখা যায়, রোদে নারীদের লাইনে নারী-পুরুষদের লাইনে পুরুষরা সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছেন। আর সওদা কিনে হাসিমুখে বাড়ি ফিরছেন।

এ নিয়ে কথা হয় কয়েকজনের সঙ্গে। স্থানীয় ডালবাড়ি এলাকার ভ্যানচালক নোওয়াব আলী কালের কণ্ঠকে জানান, ভ্যানগাড়ি চালিয়ে পেট চালাই। দুইটা পয়সা কম পেলে অনেক উপকার হয়। আজ এই বাজারে এসে আমি খুব খুশি। অনেক কম দামে অনেক (সদাই) বাজার করলাম।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ বিন রশীদ কালের কণ্ঠকে জানান, লকডাউনের জন্য সমাজের নিম্নআয়ের লোকজন আর্থিক সমস্যায় আছে। বাজারের চড়া দামে অনেকেই অনেক কিছু কিনে খেতে পারছে না। তাই তাদের সহায়তা করার জন্য এই উদ্যোগ হাতে নিয়েছি।

তিনি বলেন, আজ প্রথম দিন ৮২ হাজার টাকার পণ্য কিনে বিক্রি করে ৪২ হাজার টাকা পেয়েছি। ৪০ হাজার টাকা লস হয়েছে। কিন্তু নিম্ন আয়ের মানুষ খুশি হয়েছে- এটাই আমাদের ব্যবসার লাভ।

এই বাজারে ৮০ টাকা কেজি দরে মাছ, ৩০ টাকা কেজি দরে চাল, ৪০ টাকা দরে ডাল, পেঁয়াজ ২০ টাকা কেজি, বেগুন ১৫ টাকা কেজি, ঢেঁড়স ১৫ টাকা কেজি, লবণ ২০ টাকা কেজি, আলু ১০ টাকা কেজি, মরিচ ১০ টাকা কেজি, লেবু ৫ টাকা হালি ধরে বিক্রি হচ্ছে। 



সাতদিনের সেরা