kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

প্রভাব বিস্তার নিয়ে গলাচিপায় কিশোর গ্যাং এর দফায় দফায় সংঘর্ষ

গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি   

৬ মে, ২০২১ ১৯:৫১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রভাব বিস্তার নিয়ে গলাচিপায় কিশোর গ্যাং এর দফায় দফায় সংঘর্ষ

গলাচিপায় ‘কিশোর গ্যাং’দের দৌরাত্ব বেড়েই চলেছে। এসকল কিশোর গ্যাংদের সদস্যরা মারামারিসহ বিভিন্ন ধরণের অসামাজিক কাজে জড়িয়ে পড়ছে। এর প্রভাবে সাধারণ ছেলে মেয়েরা এবং তাদের পরিবারের লোকজন আতঙ্কে রয়েছেন। প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে গলাচিপা পৌরসভায় কিশোর গ্যাং এর সদস্যরা গত দুই দিনে তিনটি হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে কিশোর গ্যাং এর হামলায় গুরুতর আহত মো.তাইমুন ইসলাম অর্পণ (১৬), মো. হুজাইফা আলিফ দিগন্ত (১৭) ও মো. ফারদিন ইসলাম অনুসহ (১৮) ৩ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এ ঘটনায় গলাচিপা পৌরসভার ১নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোসা. রুজিনা আক্তার বাদী হয়ে গলাচিপা থানায় কিশোর গ্যাং এর সদস্য মো. সিয়াম প্যাদা, মো. জিপু ও মো. শাওনকে প্রধান আসামি করে ২৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরো ১০-১২ জন অজ্ঞাত কিশোরের নামে একটি মামলা দাখিল করেন। গলাচিপা থানার ওসি এমআর শওকত আনোয়ার ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হচ্ছে বলে জানান।

মোসা. রুজিনা আক্তারের মামলা সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পৌর এলাকার ৭নম্বর ওয়ার্ডের আনন্দ পাড়ার মোড়ে অজ্ঞাত ৪-৫ জন কিশোর মো. জিপু ও মো. শাওন প্যাদাকে মারধর করে। পরের দিন বুধবার সন্ধ্যায় মো. তাইমুন ইসলাম অর্পণ ও মো. হুজাইফা আলিফ দিগন্ত পৌরসভার আরামবাগ এলাকার স্থানীয় হেলিপ্যাড এলাকায় ঘুরতে যায়। এসময় অর্পণ ও দিগন্ত সিয়াম, জিপু ও শাওনের নেতৃত্বে কিশোর গ্যাং এর সদস্যরা মিলে বেধরক মারধর ও দেশি অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। পরে বুধবার রাত সাড়ে আটটার দিকে আহত অর্পণ ও দিগন্ত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে সিয়াম এর নেতৃত্বে ২৫-৩০ জন কিশোর হাসপাতালে হামলা করে হামলা চালায়। এতে ফারদিন ইসলাম অনু (১৮), তরিকুল ইসলাম ইসলাম মিরাজ (২০), মো. ইমনসহ (১৮) ৮ জন আহত হয়। এ সময় হাসপাতালের গেট ও জরুরি বিভাগের দরজা ভাঙচুরের জন্য হামলা করা হয়।

গলাচিপা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফ আহমেদ আসিফ বলেন, স্কুল লেভেলের ছেলেরা নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয় আহত দিগন্তের বাবার সাথে কথা হয়েছে। কিন্তু এ ঘটনায় অতি উৎসাহী অপর আরেকটি কিশোর গ্যাং হামলায় ইন্দন জোগায়।

গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হামলা প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, দিগন্ত ও অর্পণ নামে দুই কিশোরের চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে কিছু কিশোর হাসপাতালের ভিতর ঢুকে উশৃঙ্খল আচরণ শুরু করে। তারা চিকিৎসারত দিগন্ত ও অর্পণের চিকিৎসায় বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশে খবর দিলে তারা পরিবেশ নিয়ন্ত্র্র্র্রণে আনে।

গলাচিপা থানার ওসি এমআর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি কিশোর গ্যাং প্রসঙ্গে আরো বলেন, ইদানিং হঠাৎ করেই গলাচিপা কিশোর গ্যাংদের তৎপরতা দেখা যাচ্ছে। আশা করি কয়েকদিনের মধ্যেই সব নিয়ন্ত্রণে আসবে।



সাতদিনের সেরা