kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

বিকেলে স্বামী-শাশুড়ির সঙ্গে বাগবিতণ্ডা, সন্ধ্যায় গৃহবধূ লাশ

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি   

২ মে, ২০২১ ১৫:২৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিকেলে স্বামী-শাশুড়ির সঙ্গে বাগবিতণ্ডা, সন্ধ্যায় গৃহবধূ লাশ

প্রতীকী ছবি।

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় মদিনা খাতুন (২০) নামে এক গৃহধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের আদাবাড়িয়া গ্রামের স্বামী রোকন উদ্দিনের বাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আজ রবিবার সকালে পুলিশ মদিনার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মদিনার পিতার পরিবারের দাবি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। 

পাঁচ মাস আগে রোকন উদ্দিনের সঙ্গে মদিনার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই নানা কারণে শাশুড়ি, ননদ ও স্বামীর সঙ্গে মনোমালিন্য শুরু হয় মদিনার। গতকাল শনিবার বিকেলে মদিনার সঙ্গে স্বামী ও শাশুড়ির বাগবিতণ্ডা হয়। এ সময় স্বামী রোকন উদ্দিন রাগারাগি করে বাড়ি থেকে চলে যায়। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রোকন বাড়ি ফিরে ঘরের ভেতর থেকে দরজা আটকানো দেখতে পায়। ডাকাডাকি করে সাড়া না পাওয়ায় দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে বাড়ির সবাই মদিনার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পায়।

মদিনার নানা সাইফুল মোল্লা অভিযোগ করেন, ষড়যন্ত্র করে রোকন ও তার পরিবারের লোকজন মিলে মদিনাকে হত্যা করেছে। কিন্তু দায় এড়াতে এখন তারা আত্মহত্যার কথা বলছে।

অভিযোগের বিষয়ে রোকনের বড় ভাই ইউপি সদস্য সাকোওয়াত হোসেন বলেন, পারিবারিক বিষয়ে কলহের কারণে মদিনা আত্মহত্যা করেছে। হত্যার অভিযোগ ভিত্তিহীন।

ভাঙ্গুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তদন্ত নাজমুল হক বলেন, এ ঘটনায় নিহতের স্বামী রোকন উদ্দিনকে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসার পরে এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা