kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

ঈদের আগেই ফাতিমার ঈদ আনন্দ

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি    

৩০ এপ্রিল, ২০২১ ১৮:৫৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঈদের আগেই ফাতিমার ঈদ আনন্দ

বরগুনার বেতাগীতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া পুলিশের এএসআই আবদুল খালেকের পরিবারকে নতুন ঘর উপহার দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশন। গতকাল বৃহস্পতিবার বেতাগী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে নতুন ঘরের চাবি নিহতের পরিবারের সদস্যদের হাতে তুলে দেন।

জানা যায়, এসআই আবদুল খালেক গত বছরের ৩০ এপ্রিল রাজধানীর একটি হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর আকস্মিক মৃত্যুতে সন্তান নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েন স্ত্রী ফাতিমা বেগম। তাদের মানবেতর পরিস্থিতি জানার পর বরগুনার তখনকার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন নিহত এএসআই খালেকের পরিবারের জন্য একটা ছোট বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়ার কথা দেন। সেই স্বপ্ন অবশেষে পূরণ হয়েছে খালেকের পরিবারের। বেতাগী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ঝোপখালী গ্রামে বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে খালেকের পরিবারকে তিন লাখ টাকা ব্যয়ে তিন কক্ষবিশিষ্ট একটি টিনশেড পাকাঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাখাওয়াত হোসেন তপু খালেকের পরিবারের হাতে নবনির্মিত বাড়ির চাবি হস্তান্তর করেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, ডিএমপির পুলিশ অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) দক্ষিণে কর্মরত ছিলেন এএসআই আব্দুল খালেক (৩৬)। 

ফাতিমা বেগম বলেন, পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে সন্তানদের নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ি। এই দুরাবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে বাংলাদেশ পুলিশ উদ্যোগ নেওয়ায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। ঈদের আগেই আমার ঘরে ঈদের আনন্দ বইছে। আমার সন্তানদের নিয়ে নিরাপদে স্বস্তিতে থাকতে পারবো।

বেতাগী থানার ওসি কাজী শাখাওয়াত হোসেন বলেন, ঢাকার মিরপুর পুলিশ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে কর্মরত অবস্থায় আবদুল খালেক করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁদের বাসযোগ্য ভালো বাড়িও ছিল না। তাঁদের দুরাবস্থা দেখে বাংলাদেশ পুলিশের উদ্যোগে তিন কক্ষবিশিষ্ট একটি পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।



সাতদিনের সেরা