kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ বৈশাখ ১৪২৮। ১০ মে ২০২১। ২৭ রমজান ১৪৪২

বোয়ালখালীতে তীব্র গরমের সাথে যোগ হয়েছে পানির সঙ্কট

কাজী আয়েশা ফারজানা, বোয়ালখালী, চট্টগ্রাম   

২৭ এপ্রিল, ২০২১ ২১:৩০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বোয়ালখালীতে তীব্র গরমের সাথে যোগ হয়েছে পানির সঙ্কট

ছবি : সংগৃহীত

চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার প্রত্যন্ত ও উপকূলীয় অঞ্চলের অধিকাংশ নলকূপে পানি না উঠার কারণে পানীয় জলের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বোয়ালখালী শাকপুরা, সারোয়াতলী, কড়ল ডেঙ্গা, পোপাদিয়া, চরণদ্বীপ ইউনিয়ন ও পৌরসভার পশ্চিম গোমদন্ডী, পূর্ব গোমদন্ডী, কধুরখীলসহ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় নলকূপে মোটর, সামাসিয়াল দিয়েও পানি তোলা সম্ভব হচ্ছে না।

ফলে এসব এলাকায় পানীয় জলের তীব্র সংকট বিরাজ করছে। একদিকে পানির ওজন স্তর নিচে নেমে যাওয়া, অপরদিকে কয়েকটি শিল্প কারখানা বিদ্যুতের মাধ্যমে মোটর চালিয়ে গভীর নলকূপের মাধ্যমে অনেক নিচ থেকে পানি তুলে নেওয়ার কারণে এ সমস্যা হচ্ছে বলে জানান স্থানীয়রা। ফলে সমগ্র পৌর এলাকা জুড়ে চলছে বিশুদ্ধ পানির জন্য হাহাকার। পবিত্র রমজানে এ পানি সংকট তীব্র হওয়ায় জনগণের উপর মরার উপর খাড়ার ঘার মতো দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, এ রমজানে তীব্র পানি সংকটে নাকাল জনজীবন। বাসাবাড়িতে পানি সংকটের কারণে রান্নাবান্না, গোসল, ওযুসহ নিত্য জীবন যাপনে চরম ভোগান্তিতে মানুষ। বাসাবাড়ির কোনো নলকূপে পানি উঠছে না। বোয়ালখালীর অধিকাংশ এলাকায় বর্তমানে পানীয় জলের তীব্র সংকট থাকায় প্রায় কয়েক লাখ সাধারণ জনগণ নানাভাবে সমস্যায় দিন যাপন করছেন। পুকুরের পানি দিয়ে চলছে দৈনান্দিন কার্যক্রম। প্রচণ্ড তাপদাহে অনেক এলাকায় পুকুরের পানিও শুকিয়ে গেছে।

পশ্চিম গোমদন্ডীর বাসিন্দা মো. ইউচুফ রেজা বলেন, বোয়ালখালীতে অবস্থিত কয়েকটি ষিল্প কারখানা গভীর নলকূপ বসিয়ে পানি বাইরে বিক্রির ফলে এ এলাকায় পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া জনসাধারণের বিশুদ্ধ পানির চাহিদা পূরণের জন্য পৌরসভা এলাকায় সরকারি অর্থায়নে বসানো গভীর নলকূপ বাড়ি ঘরে বসানোর কারণে জনসাধারণ এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এসব নলকূপ উন্মুক্ত থাকলে পানির সমস্যা কিছুটা লাগব হতো।

পূর্ব গোমদন্ডীর বাসিন্দা মো. সেলিম উদ্দীন বলেন, এ ভ্যাপসা গরমে পানির কষ্ট চরম হয়ে দেখা দিয়েছে। তার উপর আরো পবিত্র রমজান। বিশুদ্ধ খাবার পানি জন্য এলাকায় হাহাকার চলছে।

বোয়ালখালী পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আবু বলেন, পৌর এলাকায় র্দীঘ দিন যাবৎ মানুষ পানির সংকটে ভুগছে। দিন দিন এ সংকট আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে। কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান নিয়ম নীতি ছাড়া গভীর নলকূপ বসিয়ে পানি তোলার কারণে এলাকায় পানি শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে। মেয়রের নিজের বাড়িতেও পানি সংকট হচ্ছে। পানির এ সংকট থেকে উত্তরণের জন্য জেলা প্রশাসকে স্মরক লিপি দেওয়া হবে বলে জানান।

চরণদ্বীপের চেয়ারম্যান মো. শামসুল আলম বলেন, নলকূপে পানি না উঠায় এলাকায় সুপেয় পানির সংকট সৃষ্টি হয়েছে। ফলে মানুষ অসহনীয় দুর্ভোগে পড়েছে।

উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী সুদর্শী দেওয়ান বলেন, বোয়ালখালীর বেশীর ভাগ এলাকার গভীর নলকূপ বসানো হয়েছে। উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।

বোয়ালখালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, এলাকার কয়েকটি জায়গায় গভীর নলকূপ দিয়ে পানি তোলায় পানির সংকট তৈরি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। জনপ্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ করে যতটুকু সম্ভব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা