kalerkantho

সোমবার । ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৪ জুন ২০২১। ২ জিলকদ ১৪৪২

দ্বারে দ্বারে ঘুরে, অসহ্য মৃত্যু যন্ত্রণা নিয়ে চলে গেলেন আব্দুল হক

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৬ এপ্রিল, ২০২১ ১৮:০২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দ্বারে দ্বারে ঘুরে, অসহ্য মৃত্যু যন্ত্রণা নিয়ে চলে গেলেন আব্দুল হক

কষ্ট আর অসহ্য চোখের যন্ত্রণা সইতে না পেরে অবশেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের গৃহকর্তা আতর আলী ও তানজুরের নির্যাতনে শিকার দরিদ্র আব্দুল হক (৫০)। টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় রবিবার রাতে নিজ বাড়িতেই মারা গেলেন তিনি। এ খবর পেয়ে রাতেই চুনারুঘাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন।

উপজেলার সুন্দরপুর গ্রামের দিনমজুর আব্দুল হক ৮ বছর একই গ্রামের আতর আলীর ঘরে ৪ হাজার টাকা মাসিক বেতনে গৃহভৃত্যের কাজ করে আসছিলেন। স্ত্রী সন্তানহীন দিনমজুর আ. হক নিজের উপার্জিত সম্পূর্ণ টাকা গৃহকর্তা আতর আলীর নিকট জমা রাখতেন। বছর খানেক আগে তিনি ওই গৃহকর্তার ঘরে আর কাজ করবে না জানিয়ে তার পাওনা টাকাগুলো ফেরত চান। গৃহকর্তা আতর আলী ও তাহার ছেলে তানজুর এ সময় আব্দুল হককে এলোপাতারি মারধর করেন এবং ধান কাটার কাস্তে দিয়া আ. হকের বাম চোখের নিচে ও গালে আঘাত করেন। পরে গৃহকর্তা আতর আলী তাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। পরবতীতে সিলেট ওসমানী মেডিক্যালে আ. হককে ভর্তি করা হলেও টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে পারেননি। ভালো চিকিৎসা না হওয়ার কারণে তার বাম চোখ ইনফেকশন হয়ে গলে নষ্ট হযে যায়।

এনিয়ে, সাটিয়াজুরী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদের সভাপতিত্বে ইউপি অফিসে এক শালিস বৈঠক বসে। বৈঠকে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে আ. হকের চিকিৎসার জন্য ৪ লাখ টাকা দেওয়ার জন্য রায় হয়। কিন্তু আতর আলী এ টাকা দেয়নি আব্দুল হক। টাকার জন্য আব্দুল হক দ্বারে দ্বারে ঘুরে অবশেষে অসহ্য মৃত্যু যন্ত্রণা নিয়ে চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

চুনারুঘাট থানার ওসি আলী আশরাফ উদ্দিন জানান, এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে। অভিযুক্তদেরকে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।



সাতদিনের সেরা