kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ বৈশাখ ১৪২৮। ১১ মে ২০২১। ২৮ রমজান ১৪৪২

১৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ

চাঁদা না পেয়ে বসতবাড়িতে তাণ্ডব, নারীর প্রতি অশালীন আচরণ

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

২১ এপ্রিল, ২০২১ ২১:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদা না পেয়ে বসতবাড়িতে তাণ্ডব, নারীর প্রতি অশালীন আচরণ

কক্সবাজারের চকরিয়ায় মাতামুহুরী নদীর ভাঙনের শিকার হয়ে বসতি হারানো একটি পরিবার বনভূমিতে আশ্রয় নেওয়ায় স্থানীয় সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজচক্র মোটা অংকের চাঁদা না পেয়ে বসতবাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তারা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বাড়িতে থাকা এক নারীর প্রতিও অশালীন আচরণ করে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবারটি আজ বুধবার বিকেলে চকরিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে ১৪ জনকে। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৮নম্বর ওয়ার্ডের ইসলামনগর মাদরাসা পাড়াস্থ সংরক্ষিত বনভূমিতে এই ঘটনা ঘটে।

ওই এলাকার মৃত আবুল হোছনের পুত্র নেছারুল হক থানায় দেওয়া অভিযোগে দাবি করেছেন, প্রায় ৮ বছর আগে উপজেলার বিএমচর ও কৈয়ারবিল ইউনিয়নের মাঝামাঝি এলাকায় মাতামুহুরী নদীর একটি শাখা খাল খনন করে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এ কারণে ওই এলাকায় থাকা বসতবাড়িটি নদীগর্ভে তলিয়ে গিয়ে বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েন পরিবারটি। এর পর কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ইসলামনগর মাদরাসা পাড়ায় কয়েকজনের কাছ থেকে দখলীয় ২০ শতাংশ বনভূমি ২ লক্ষ ১০ হাজার টাকায় ননজুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে চুক্তির মাধ্যমে ক্রয়ের পর বসতি স্থাপন করেন। কিন্তু স্থানীয় হেডম্যান আলী আহমদের দুই ছেলে মানিক ও খলিলের নেতৃত্বে একদল চাঁদাবাজ নেছারুল হকের কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। সেই টাকা না দেওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মানিক ও খলিলের নেতৃত্বে সশস্ত্র হামলা, তাণ্ডব ও লুটপাট চালায়।

বাদী আরো দাবি করেছেন, ঘটনার সময় বসতবাড়িতে তাণ্ডব চালিয়ে বাড়িতে থাকা নগদ ২ লক্ষ টাকা, অন্তত ৫ ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ বিভিন্ন মালামাল লুট করে। এ সময় ভাঙচুরে ক্ষতি করা হয় অন্তত লক্ষাধিক টাকার এবং পুরুষশূন্য বাড়িতে থাকা নারীদের সাথে অশালীন আচরণও করে তারা।

এ ব্যাপারে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা চকরিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. গোলাম সারওয়ার জানান, এ ধরনের একটি লিখিত অভিযোগ হাতে পেয়েছি। সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা