kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ বৈশাখ ১৪২৮। ১১ মে ২০২১। ২৮ রমজান ১৪৪২

মুজিববর্ষে আমতলীর ৩৫০ পরিবার পাচ্ছে মাথা গোঁজার ঠাঁই

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি   

২১ এপ্রিল, ২০২১ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুজিববর্ষে আমতলীর ৩৫০ পরিবার পাচ্ছে মাথা গোঁজার ঠাঁই

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বরগুনার আমতলী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে অসহায়, দরিদ্র, ভূমিহীন ও গৃহহীন ছিন্নমূল মানুষদের মধ্যে থেকে আরো ৩৫০ পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পাচ্ছে।

উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের অসহায় দরিদ্র ও গৃহহীন পরিবারের মধ্য থেকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে প্রথম ধাপে ৫২টি পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পেয়েছে। আগামী মাসের মধ্যে উপজেলার আরো ৩৫০টি পরিবার মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে।

১৯৯৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের পুর্নবাসনের কার্যক্রম শুরু করেন। মুজিববর্ষের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দেন এদেশে কেউ গৃহহীন থাকবে না। সে আলোকে অসহায় ও গৃহহীনরা পর্যায়ক্রমে ঘর পাচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মো. মতিয়ার রহমান বলেন, গৃহহীনদের মাথা গোঁজার জন্য ঘর তৈরি করে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর একটি বৈপ্লবিক ঘোষণা। প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক জীবনের সূচনালগ্ন থেকে পিতা মুজিবের আদর্শে অটুট থেকে দরিদ্র ও অসহায় মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, প্রথম দফায় উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের গৃহহীন ও অসহায় ৫২টি পরিবারকে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দেওয়া হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় আরো ৩৫০টি পরিবারকে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দেওয়া হবে।

বরগুনা-১ আসনের সংসদ সংসদ অ্যাড. ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু মুঠোফেনে বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহহীন পরিবার পেয়েছে তাদের স্বপ্নের আবাসস্থল। বরগুনা সদর- আমতলী- তালতলীতে শত শত গৃহ নির্মাণের অপেক্ষায় রয়েছে। গৃহহীন মানুষ খুঁজে পাবে তাদের শান্তির নীড়। অনুভব করবে রাষ্ট্রীয় অভিভাবকত্ব।

তিনি আরো বলেন, যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পিতার আদর্শে অটুট থেকে দরিদ্র ও অসহায় মানুষের কল্যাণে আত্মনিয়োগ করেছেন।

তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, যারা ঘর নির্মাণ কাজ করবেন তারা যেন সততার সাথে ঘর নির্মাণ করেন। ঘর নির্মাণে কোনো অনিয়ম করলে তাদের কোনো প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না। 



সাতদিনের সেরা