kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

তাহিরপুরে গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২১ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তাহিরপুরে গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে আজমিনা বেগম (২৪) নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। আজ বুধবার (২১ মার্চ) ভোরে বসতঘরের পাশে রান্না করার লাকড়ির রাখার জন্য তৈরি মাচার নিচ থেকে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করেছে। আজমিনা বেগম উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের জৈতাপুর গ্রামের শাহনুর মিয়ার স্ত্রী।

বুধবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন তাহিরপুর সার্কেলের এএসপি বাবুল আখতার, ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার। তারা জানান, প্রাথমিক আলামতে মনে হয়েছে এটি হত্যাকাণ্ড। নিহতের মাথা, গলা ও হাতে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে, মৃত আজমিনার স্বামী শাহনুর মিয়া সপ্তাহ সময় ধরে জামালগঞ্জ উপজেলার একটি হাওরে ধান কাটার কাজে কর্মরত। তাই গৃহবধূ তার ৫ বছরের ১ ছেলে ও ২বছরের ১মেয়েকে সাথে নিয়ে বসত ঘরে থাকতো। গতকাল মঙ্গলবার রাতে আনুমানিক ২টার দিকে মৃত গৃহবধূর ছেলে-মেয়ের কান্নাকাটি শুনে পাশের ঘর থেকে শ্বশুর ও অন্যরা দৌড়ে ছুটে এসে দেখতে পায় ওই গৃহবধূ ঘরে নেই। শ্বশুর বাড়ির লোকজন রাতে গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও গৃহবধূর সন্ধান পায়নি। ভোরে পুনরায় গৃহবধূর সন্ধানে বের হলে বসতঘরের পাশেই রান্নার  লাকড়ি রাখার জন্য তৈরি মাচার নিচে আজমিনা বেগমের মরদেহ দেখতে পায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন। সকাল সাতটায় ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত গৃহবধূর স্বামী শাহনুর মিয়া বলেন, আমি গত ৭/৮ দিন ধরে পার্শ্ববর্তী জামালগঞ্জ উপজেলার একটি হাওরে ধান কাটার কাজে ছিলাম। কে বা কারা আমার স্ত্রীকে এমন করে মেরে লাশ বাইরে ফেলে রাখলো তা বুঝতে পারছি না।

তাহিরপুর থানার ওসি আব্দুল লতিফ তরফদার বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনে কাজ করছে পুলিশ।



সাতদিনের সেরা