kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

একটি হাতপাখাও বিক্রি হয়নি জসিমের

বিয়ানীবাজার (সিলেট) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:৪৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একটি হাতপাখাও বিক্রি হয়নি জসিমের

চলমান লকডাউনে দোকানপাট বন্ধ থাকায় একটি হাতপাখা বিক্রি করতে পারেনি পাখা বিক্রেতা জসিম উদ্দিন। পূর্বপুরুষের পেশা হিসেবে জসিম বিভিন্ন ধরনের পাখা তৈরি করেন এবং বিক্রি করেন। কিন্তু সম্প্রতি লকডাউনের কারণে বাজারে মানুষ আসছে না তাই সারা দিন চেষ্টা করে একটি পাকা বিক্রি করতে পারেননি তিনি।

প্রখর রোদ ও প্রচণ্ড গরমে সিলেটের বিয়ানীবাজারে হাতপাখার কদর বাড়লেও বিক্রি বাড়েনি ফেরি করে পাখা বিক্রেতাদের। সরকার ঘোষিত লকডাউনে অফিস-আদালত বন্ধ থাকায় শহুরে মানুষ সবাই গ্রামে ফিরেছে। যারা বাসা-বাড়িতে আছেন তারাও বের হচ্ছেন না। শুধু পেটের ক্ষুধায় বের হচ্ছেন জসিমের মতো মানুষেরা। তবে তারা ফিরছেনও খালি হাতে।

লকডাউনে বিয়ানীবাজার পৌর শহরে হাতপাখা বিক্রি করতে আসা বড়লেখা উপজেলার বর্ণি এলাকার জসিম উদ্দিন বলেন, যখন বিদ্যুৎ থাকে না তখন মানুষ গরমে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। আমি নিজেই প্রতিবছর গরমের এমন সময় হাতপাখার ব্যবসা করি। এতে মোটামুটি রোজগারও ভালো হয়। কিন্তু চলমান লকডাউনের কারণে বাজারে মানুষ না থাকায় লস গুনতে হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, তৈরি করার পর প্রতি পিস হাতপাখা বিক্রি করি ৫০-৬০ টাকায়। লকডাউনের আগে প্রতিদিন ৪০০-৫০০ টাকা রোজগার হতো। কিন্তু কয়েক দিন যাবৎ বিক্রি নেই বললেই চলে। আগে প্রয়োজনে কেউ আবার বাড়িতে এসে কিনে নিয়ে যায় হাতপাখা। বলতে গেলে প্রতি মাসে আয় হয় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা বিক্রি করতাম কিন্তু বর্তমানে এমন বিক্রি নেই।



সাতদিনের সেরা