kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

স্বপ্নের ধান এখন গো-খাদ্য!

চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি   

২০ এপ্রিল, ২০২১ ১৬:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বপ্নের ধান এখন গো-খাদ্য!

যশোরের চৌগাছায় ইরি-বোরো ধানে চিটা হয়ে যাচ্ছে। এলাকার কৃষকরা ওই চিটা ধান কেটে গো-খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করছেন। তীব্র তাপমাত্রা ও ঝড়ো হাওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে উপজেলা কৃষি অফিস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলাতে সাড়ে ১৮ হাজার হেক্টর জমিতে নানা জাতের ইরি-বোরো ধানের চাষ হয়েছে। কিন্তু বৈরী আবাহওয়ার কারণে অনেক এলাকার ধানে চিটা হওয়ার খবর আসছে। উপজেলার লস্কারপুর, কয়ারপাড়া, দিঘলসিংহ, মশ্মমপুর, পৌর এলাকার বাকপাড়া, পাঁচনামনাসহ বেশ কিছু এলাকার মাঠ ঘুরে দেখা গেছে কৃষকের রোপণকৃত ধানের শীষ বের হয়েছে। সবুজ গাছের ধানগুলো সাদা হয়ে গেছে। এলাকার চাষিরা ধানের এমন অবস্থাকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মনে করছেন। অনেকে বলছেন, কারেন্ট পোকার আক্রমণে ধানের এ অবস্থা।

দিঘলসিংহ গ্রামের কৃষক ওলিয়ার জানান, চলতি মৌসুমে তিন বিঘা জমিতে বিআর-৬০ জাতের ধান চাষ করেন। আগাম জাতের ধান বেশ ভালোই হয়েছিল। সব ধানেই শীষ বের হয়েছে কিন্তু ধানে দানা না হয়ে প্রতিটি শীষ চিটা হয়ে গেছে। ধানের গাছ এখনো সবুজ অথচ শীষ সাদা হয়ে গেছে। বাধ্য হয়ে এক বিঘা জমির ধান কেটে গো-খাদ্য (বিচালী) তৈরি করেছেন। যে জমিতে তার ২৮ মন ধান হওয়ার কথা সেখানে এক মণ ধানও হবে না বলে তিনি জানান।

উপজেলা কৃষি অফিসার রইচউদ্দিন বলেন, ধানে ফুল আসার সময় সহনশীল তাপমাত্রার দরকার। কিন্তু ওই সময়ে প্রচন্ড তাপমাত্রা থাকায় আগাম শীষ বের হওয়া ধানে চিটা হয়েছে। তবে এখন যে ধানের শীষ বের হচ্ছে সেগুলো ভালো আছে। এই অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্থ্য কৃষকদের জমিতে পানি ধরে রাখা ও ধানের শীষে শক্তি বাড়াতে কিছু ওষুধ স্প্রের করার পরামর্শ দেন তিনি।



সাতদিনের সেরা