kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ বৈশাখ ১৪২৮। ১০ মে ২০২১। ২৭ রমজান ১৪৪২

কেশবপুরে পশুহাট নিয়ে দুপক্ষ মুখোমুখি, এলাকায় আতঙ্ক

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি   

১৭ এপ্রিল, ২০২১ ২০:২৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কেশবপুরে পশুহাট নিয়ে দুপক্ষ মুখোমুখি, এলাকায় আতঙ্ক

যশোরের কেশবপুরে শনিবার দুপুরে সাতবাড়িয়া পশুহাটকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের ভেতর উত্তেজনা দেখা দিলে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ওই সময় পুলিশ ৩ যুবককে আটক ও ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালে সাতবাড়িয়া বাজারের পূর্বপাশে ২১ শতক জমির ওপর সাতবাড়িয়া পশুহাট স্থাপিত হয়। পরবর্তীতে আরও দেড় বিঘা জমি বর্গা নিয়ে হাটটি পরিচালিত হয়ে আসছে। এলাকার চেয়ারম্যান সামছুদ্দীন দফাদারের প্রচেষ্টায় পশুহাটটি গড়ে ওঠে। পশু হাটটি গড়ে তুলতে তাদের প্রায় ২০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে। ওই হাটে সপ্তাহের শনি ও মঙ্গলবার গরু-ছাগল বিক্রি হয়। হাট পরিচালনার জন্য চেয়ারম্যান সামছুদ্দীন দফাদারকে সভাপতি ও মশিয়ার রহমান দফাদারকে সাধারণ সম্পাদক করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। হাটটি সরকারিভাবে ডাকে আনার জন্য ২০১৯ সালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের কাছে কাগজপত্র জমা দেয়া হয়।

সাতবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও পশুহাট কমিটির সভাপতি সামছুদ্দীন দফাদার বলেন, গত ৮ এপ্রিল কেশবপুর পৌরসভার রামচন্দ্রপুর এলাকার লিটন গাজী নামে এক ব্যক্তি সাতবাড়িয়া কাঁচা বাজারের ইজারা পান। সাতবাড়িয়া কাঁচা বাজারের সাথে পশু হাটের কোনো সম্পর্ক না থাকার পরও শনিবার সকালে লিটন গাজীর নেতৃত্বে ৫০ থেকে ৬০ জন যুবক মোটরসাইকেলযোগে হাট এলাকায় আসে। এ সময় পশুহাট পরিচালনা কমিটি ও কাঁচা বাজার ইজারাদারের লোকজনের ভেতর উত্তেজনা দেখা দিলে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। চেয়ারম্যান সামছুদ্দীন দফাদার দাবি করেন, লিটন গাজী কেশবপুর শহর থেকে যুবকদের এনে পশুহাটটি তাদের নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার চেষ্টা করে। 

সাতবাড়িয়া বাজার ইজারা পাওয়া লিটন গাজী আটক থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

খবর পেয়ে কেশবপুর থানার ওসি জসীম উদ্দীনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সাতবাড়িয়া পশুহাট এলাকায় পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। এ সময় পুলিশ কাঁচা বাজারের ইজারাদার লিটন গাজী, সাতবাড়িয়া ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুম বিল্লাহ ও সাবেক ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলীকে আটক করে। পাশাপাশি তাদের ব্যবহৃত ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

কেশবপুর থানার ওসি জসীম উদ্দীন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে ওই ৩ যুবক আটকসহ ১১টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে। আটক যুবকদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত পরে নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম এম আরাফাত হোসেন বলেন, সাতবাড়িয়া পশু হাটটি সরকারের রাজস্ব খাতে যাওয়ার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। পশুহাটের সঙ্গে সাধারণ হাটের কোনো সম্পর্ক নেই। পশুহাটটি বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।



সাতদিনের সেরা