kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

ইন্দুরকানীতে ইচ্ছামতো দোকান খোলা রেখেছেন ব্যবসায়ীরা

ইন্দুরকানী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি   

১৬ এপ্রিল, ২০২১ ২০:৫৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইন্দুরকানীতে ইচ্ছামতো দোকান খোলা রেখেছেন ব্যবসায়ীরা

করোনার সংক্রমণ রোধে লকডাউনে সরকারের দেওয়া কঠোর বিধি-নিষেধ মানছে না পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগণ। কাঁচাবাজার, মুদিবাজার, ওষুধ ও খাবারের কিছু দোকান খোলা থাকার কথা থাকলেও বিধি-নিষেধের তোয়াক্কা না করে ব্যবসায়ীরা সব ধরনের দোকানপাট খোলা রেখেছেন গত তিন দিন যাবৎ।

লকডাউন মানাতে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশ চেষ্টা করলেও বিভিন্ন হাট-বাজারের ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে নেওয়া হচ্ছে না তেমন কোনো জোরালো পদক্ষেপ। তবে প্রশাসনের কড়া নজরদারি না থাকায় নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না সড়ক এবং হাট-বাজারগুলোতে থাকা জনসমাগম- এমনটাই অভিযোগ সচেতন মহলের। শুধু ইন্দুরকানী বাজার বাদে উপজেলার ৫ ইউনিয়নের অন্য ছোট-বড় হাট-বাজারগুলোর অবস্থা কমবেশি সব একই রকম।

উপজেলা সদরের ইন্দুরকানী বাজার এবং সড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে প্রশাসনের কিছুটা বাড়তি তদারকি দেখা গেলেও উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন হাট-বাজার ও সড়কে লকডাউনের তেমন ছাপ পড়েনি। এ ছাড়া গ্রামগঞ্জের হাট-বাজারগুলোতে প্রায় ৮০ ভাগ মানুষের মুখে নেই মাস্ক, নেই স্বাস্থ্যবিধির কোনো বালাই। অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছে। কারা দোকানপাট খোলা রাখতে পারবে আর কারা পারবে না এ ধরনের সচেতনতা দেখা যায়নি অনেক জায়গায়। সড়কগুলোতে বাস ছাড়া অন্যান্য যানবাহন চলাচল করেছে স্বাভাবিক নিয়মে।

বিশেষ করে বালিপাড়া, ঘোষেরহাট ও চণ্ডীপুর হাটে গত তিন দিনে লকডাউনের কোনো ছাপ পড়েনি। প্রশাসনেরও তেমন কোনো কড়াকড়ি নেই বলে নিজেদের ইচ্ছামতো দোকানপাট খোলা রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। বিভিন্ন হাট-বাজার ঘুরে সকাল থেকে ১০টা পর্যন্ত দোকানপাট খোলা রাখতে দেখা গেছে ব্যবসায়ীদের। হাট-বাজার এবং রাস্তাঘাটে বিনা প্রয়োজনে বের হচ্ছেন অনেকে।

ইন্দুরকানী থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান, আমি উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার এবং মসজিদগুলোতে গিয়ে করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের দেওয়া নির্দেশনা মেনে চলার পরামর্শ দিচ্ছি ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে। মুখে মাস্ক পরা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে না হওয়া এসব বিষয় জনগণকে বুঝাচ্ছি। লকডাউনে আমাদের সার্বক্ষণিক পুলিশি টহল চলছে।



সাতদিনের সেরা