kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

ভুল গ্রুপ নির্ণয় করে রক্ত দেওয়ায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০২:০৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভুল গ্রুপ নির্ণয় করে রক্ত দেওয়ায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

গাইবান্ধায় সিজারিয়ান অপারেশনের পর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে এক প্রসূতি নারীর (২৫) মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। তবে স্বজনদের দাবি, ভুল গ্রুপ নির্ণয় করে রক্ত দেওয়ার ফলেই এই মৃত্যু। 

হাসপাতাল সূত্র বলেছে, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণেই তিনি মারা গেছেন। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রসূতির স্বজনরা বিক্ষুব্ধ হয়ে চিকিৎসকদের ওপর চড়াও হন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও প্রসূতির স্বজনরা জানান, গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কামারপাড়া গ্রামের শাহিন মিয়ার গর্ভবতী স্ত্রী মিম আকতারকে গত সোমবার গাইবান্ধা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে তার সিজারিয়ান অপারেশন হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীর স্বজনদের রোগীর জন্য এবি পজিটিভ গ্রুপের রক্ত আনতে বললে তারা নিয়ে আসেন। দুই ব্যাগ এবি পজিটিভ রক্ত দেওয়ার পর প্রসূতির অবস্থার উন্নতি না হয়ে অবনতি ঘটলে কিছুক্ষণ পর মীম আকতার মারা যান। পরে স্বজনরা বিভিন্ন ক্লিনিক থেকে করা পরীক্ষার রিপোর্টে দেখেন রোগীর রক্তের গ্রুপ ও পজিটিভ! এ সময় রোগীর স্বজনরা বিক্ষোভ শুরু করেন এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকদের ওপর চড়াও হন।

রোগীর স্বজনদের অভিযোগ, তাদের পরিবারের অনেকেরই রক্তের গ্রুপ ও পজিটিভ। কিন্তু ডাক্তার এবি পজিটিভ রক্ত চাওয়ায় তারা সেই গ্রুপের রক্ত সংগ্রহ করে দেন। চিকিৎসক ভুল গ্রুপের রক্ত পুশ করার পর রোগী মারা যান।

হাসপাতালের কর্তব্যরত গাইনি চিকিৎসক ডা. তাহেরা আক্তার মনি জানান, অতিরিক্ত রক্তরক্ষণে প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের প্যাথলজিতে এবি পজিটিভ রক্তের গ্রুপ নিশ্চিত হওয়ার পর রোগীর শরীরে রক্ত দেওয়া হয়েছে। এছাড়া অন্য কোনো হাসপাতালে রক্ত পরীক্ষায় রক্তের গ্রুপ ও পজিটিভ হয়েছিল কিনা তা আমার জানার কথা নয়।

গাইবান্ধা সদর থানার ওসি মাহফুজুর রহমান জানান, এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় থানায়  কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি।



সাতদিনের সেরা