kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

হেফাজতের তাণ্ডব : মামলায় নাম দেয়া হল আসামিদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

৮ এপ্রিল, ২০২১ ০৯:২৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হেফাজতের তাণ্ডব : মামলায় নাম দেয়া হল আসামিদের

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে হেফাজতের তাণ্ডব। ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের কর্মসূচি চলাকালে তাণ্ডবের ঘটনায় দায়ের হওয়া ৪৫টি মামলায় মোট ৩৫ হাজার জনকে আসামি করা হলেও মাত্র ছয়টি মামলায় ১৩৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। তবে এবার আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা আবু নাছের আহাম্মদের বাড়িতে হামলার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় ৪৩ জনের নাম উল্লেখ করে ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

বুধবার (০৭ এপ্রিল) আশুগঞ্জ থানায় দায়ের করা ওই মামলায় বিএনপি, জামায়াত ও ছাত্রদলের নেতা-কর্মীর নাম রয়েছে। আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আবু নাছের আহাম্মদের ভাই মো. আবু রেজভী বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় প্রায় ৪৯ লাখ টাকা ক্ষতির কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলায় আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক হাজি মো. শাহজাহান সিরাজ, সদস্য সচিব মো. হাবিবুর রহমান, জামায়াত আমীর তাজুল ইসলামকে যথাক্রমে এক থেকে তিন নম্বর আসামি করা হয়। এছাড়া হাজি মিজানুর রহমান খাঁ, কামাল হোসেন জয়, মাঈন উদ্দিন মোল্লা, মো. জসিম উদ্দিন, মো. হেবজু, মো. রফিকুল মিয়াসহ মোট ৪৩ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। ২৮ মার্চ হামলা লুটপাটের কথা উল্লেখ করে দায়ের করা মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। সন্ত্রাস বিরোধী আইনে এ মামলাটি নথিভুক্ত করে পুলিশ।

এদিকে তাণ্ডবের ঘটনার পর সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সেবাদান বন্ধের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক রাজধানী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও স্থবিরতা বিরাজ করছে। ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ পৌর মিলনায়তন, জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তন, সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গন, বঙ্গবন্ধু স্কয়ার শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ ভাষা চত্বর পুড়িয়ে দেয়া ও ভাঙচুর চালানোয় সেখানে কোনো ধরনের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড চালানো যাচ্ছে না। সাংস্কৃতিক অঙ্গনে জড়িতরা মনে করছেন, এ ধরনের হামলার পূর্ব পরিকল্পিত।

সুর সম্রাট ওস্তাদ দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গনের সাধারণ সম্পাদক মনজুরুল আলম বলেন, ‘২০১৬ সালের ১২ জানুয়ারিও এখানে অগ্নিসংযোগ করা হয়। সে ঘটনার বিচার হয়নি। ১৯৫৬ সালে প্রতিষ্ঠার পর পাকিস্তান আমলে মৌলবাদ সরকার ক্ষমতায় থাকলেও দেশ স্বাধীনের আগে এ ধরণের ঘটনা ঘটেনি। এবারের ধ্বংসযজ্ঞে গান পাউডার ব্যবহার করা হয়। এসব থেকে বুঝা যায় এটা পরিকল্পিত হামলা।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাহিত্য একাডেমির সভাপতি কবি জয়দুল হোসেন বলেন, ‘৭১ এর মতো বর্বরোচিত তাণ্ডব চালানো হয়েছে। বেছে বেছে সরকারি অফিসের পাশাপাশি সংস্কৃতি অঙ্গনে হামলা চালানো হয়। এ হামলা পূর্ব পরিকল্পিত। এর আগে এ ধরনের হামলা হলেও বিচার পাওয়া যায়নি।’

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে হেফাজতে ইসলামের ডাকা কর্মসূচিকে সামনে রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তিনদিন তাণ্ডব চালানো হয়। তাণ্ডবে জেলা শহরের অন্তত একশ’ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মীদের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এছাড়া জেলার আশুগঞ্জ ও সরাইল উপজেলাতেও হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় সংঘর্ষে অন্তত ১৩ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এসব ঘটনায় ৬ এপ্রিল নাগাদ ৪৫টি মামলা দায়ের হলেও মাত্র ৩৩ জনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় আইন-শৃংখলারক্ষা বাহিনী।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা