kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

মোদিকে স্বাগত জানাতে মুখিয়ে আছে টুঙ্গিপাড়া-ওড়াকান্দিবাসী

প্রসূন মন্ডল, গোপালগঞ্জ   

২৬ মার্চ, ২০২১ ১৫:৫৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মোদিকে স্বাগত জানাতে মুখিয়ে আছে টুঙ্গিপাড়া-ওড়াকান্দিবাসী

আগামীকাল শনিবার (২৭ মার্চ) গোপালগঞ্জ আসছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই দুই রাষ্ট্র প্রধানের আগমন উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ কমপ্লেক্স ও ওড়াকান্দির ঠাকুর বাড়িতে শেষ করা হয়েছে সকল ধরনের প্রস্তুতি। তাদের আগমনে জেলায় নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিশেষ করে টুঙ্গিপাড়া ও ওড়াকান্দিতে গোয়েন্দা নজরদারীসহ কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ইতিমধ্যে এই দুই স্থানে সর্বসাধারণের প্রবেশ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গত মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) থেকে নিরাপত্তা কর্মীরা টুঙ্গিপাড়া সমাধি সৌধ কমপ্লেক্স ও ওড়াকান্দি ঠাকুর বাড়ি তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। পুরো এলাকা বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা ও সার্চ লাইট।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে  পৌঁছাবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেখানে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, চারাগাছ রোপণ ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধ পরিদর্শন ও পরিদর্শন বইয়ে মন্তব্য লিখবেন। তাকে স্বাগত জানাতে এর আগে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বেলা ১১টা ৩৫ মিনিটে নরেন্দ্র মোদি যাবেন গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দি গ্রামের হরিচাঁদ ঠাকুরের বাড়িতে। এ সময় তিনি শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের মন্দিরে পূজা অর্চনা করবেন। পরে ঠাকুর বাড়ির সদস্য ও মতুয়া নেতৃবৃন্দের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করার কথা রয়েছে। এদিকে ঠুকুর বাড়ির পক্ষ থেকে পূজা অর্চনা করার জন্য সকল ধরনের উপকরণ প্রস্তুত ও সংরক্ষণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ির সদস্য ও বাংলাদেশ মতুয়া মহাসংঘের মহাসংঘাতিপতি (সভাপতি) সীমা দেবী ঠাকুর বলেন, ঠাকুর বাড়ির পক্ষ থেকে নরেন্দ্র মোদিকে বরণ করতে আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। ঠাকুর বাড়ির বধুরা তাকে ফুল ছিটিয়ে উলধ্বনি ও শঙ্খ বাজিয়ে অভিনন্দ জানাবে। আর পূজা অর্চনার জন্য কাসর ঘণ্টা, ফুল, প্রদীপসহ বিভিন্ন ধরনের উপকরণ প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

গোপালগঞ্জের স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এহসানুল হক বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে ওড়াকান্দিতে ৪টি হ্যালিপ্যাড নির্মাণ, হ্যালিপ্যাড থেকে ঠাকুরবাড়ি মন্দির পর্যন্ত পাঁচ শ মিটার নতুন এইচবিবি রাস্তা, ঢাকা- খুলনা মহাসড়ক থেকে যে গ্রামীণ সড়ক ঠাকুর বাড়ি এসে মিশেছে সেসব রাস্তার সংস্কার করা হয়েছে। ইতিমধ্যে এসব কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

গোপালগঞ্জ গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী অমিত কুমার বিশ্বাস বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে গণপূর্ত বিভাগ টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধি সৌধ কমপ্লেক্স ও এ আশপাশ এলাকা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, সাজসজ্জা ও সৌন্দর্য বর্ধন এবং ওড়াকান্দিতে ভিআইপি লাউন্স, প্যান্ডেল নির্মাণসহ বিভিন্ন ধরনের কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছে। এখন অতিথিদের আসার অপেক্ষায় আছি। আশাকরি সফলভাবে সব কিছু সম্পন্ন হবে।

পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির সফরকে কেন্দ্র করে পুরো টুঙ্গিপাড়া ও ঠাকুরবাড়ি এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে। ইতোমধ্যে পোশাকে এবং সাদা পোশাকে নিরাপত্তা কর্মীরা কর্মসূচী দেওয়ার পর থেকে দায়িত্ব পালন করছে। উভয় স্থানে সিসিটিভি ক্যামেরা ও সার্চ লাইট স্থাপন করে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আশাকরি ভিভি আইপি প্রোগ্রামে নিরাপত্তার কোনো ত্রুটি থাকবে না এবং সফলভাবে কর্মসূচি শেষ হবে।

জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, টুঙ্গিপাড়া ও ওড়াকান্দিতে দুই ভিআইপি ব্যক্তিদ্বয়ের আগমণ উপলক্ষে, যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিশ্রামাগার, পূজা অর্চনার সরঞ্জাম, হেলিপ্যাড ও রাস্তা নির্মাণসহ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। আশাকরি কভিড-১৯ এর স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমরা কর্মসূচি সফল করতে সক্ষম হব।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা