kalerkantho

মঙ্গলবার । ১ আষাঢ় ১৪২৮। ১৫ জুন ২০২১। ৩ জিলকদ ১৪৪২

হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনেও হামলা করল ছাত্রলীগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২৪ মার্চ, ২০২১ ১৯:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধনেও হামলা করল ছাত্রলীগ

প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ওপর হামলার প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আয়োজন করা মানববন্ধন ও সমাবেশে হামলার ঘটনা ঘটেছে। জেলা ছাত্র মৈত্রী বুধবার বিকেলে প্রেস ক্লাবের সামনে এ কর্মসূচির আয়োজন করলে ছাত্রলীগ হামলা করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২৩ মার্চ ঢাকায় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মিছিলে আক্রমণ করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এরই প্রেক্ষিতে বুধবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সামনে মানবন্ধন ও সমাবেশের আয়োজন করে ছাত্র মৈত্রী। একই সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদেরও একটি মানববন্ধন আয়োজন করা হয়।

ছাত্র মৈত্রীর নেতাকর্মীরা কর্মসূচি শুরু করলে উপস্থিত হন মুক্তিযোদ্ধারা। এরই মধ্যে ছাত্র মৈত্রীর সমাবেশটি সংক্ষিপ্ত করতে মুক্তিযোদ্ধারা আহ্বান জানান। তবে মুহূর্তেই ছাত্রলীগের কিছু নেতা-কর্মী এসে ছাত্র মৈত্রীর ব্যানার টেনে নিয়ে যায়। লাঞ্ছিত করে ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি ফাহিম মুনতাসির, সাধারণ সম্পাদক সানিউর রহমান, সমাজকল্যাণ সম্পাদক মো. জিহাদ ও কার্যকরী সদস্য মুহয়ি শারদকে।

ঘটনার সময় উপস্থিত থাকা জেলা যুব মৈত্রীর আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট নাসির মিয়া বলেন, মানববন্ধন শুরুর সময়ই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে যায়। তবে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকারের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। তবে পরবর্তীতে ছাত্র মৈত্রী তাদের নির্ধারিত আয়োজন করতে পারেনি।

অনুষ্ঠানস্থলে থাকা ছাত্রলীগের এক নেতা বলেন, ব্যানারে মোদির আগমন নিয়ে আপত্তিকর কথা লেখা ছিল। যে কারণে তাদেরকে এ কর্মসূচি বাতিল করতে বলা হয়। তবে কাউকে লাঞ্ছিত করার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। 

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা আগে থেকেই এখানে মানববন্ধন কর্মসূচি দিয়ে রাখে। যে কারণে সেখানে থাকা ছাত্র মৈত্রীর নেতৃবৃন্দকে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচি করে সরে যেতে বলা হয়।

এদিকে এ ঘটনায় একাধিক রাজনৈতিক সংগঠন নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হুসাইন আহমেদ তফসির, বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী মাসুদ, সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ খান, কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি শাহরিয়ার মো. ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, উদীচী সভাপতি জহিরুল ইসলাম স্বপন, সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস রহমান, বিজয়নগর উপজেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পী, যুব মৈত্রীর সদস্য সচিব ফরহাদুল ইসলাম, কৃষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এম এ রফিক প্রমুখ এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দেন।



সাতদিনের সেরা