kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

ছাতকে হাইওয়ে পুলিশের রমরমা টোকেন বাণিজ্য

লাইসেন্স থাকলেও গাড়ি চালাতে টোকেন লাগে হাইওয়ে পুলিশের!

ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ মার্চ, ২০২১ ০২:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লাইসেন্স থাকলেও গাড়ি চালাতে টোকেন লাগে হাইওয়ে পুলিশের!

প্রতীকী ছবি

ছাতকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলে হাইওয়ে পুলিশের রমরমা টোকেন বাণিজ্য বেপরোয়া হয়ে পড়েছে। এসব অটোরিকশার লাইসেন্স থাকলেও হাইওয়ে পুলিশের দেওয়া টোকেন (পুলিশের দেওয়া বিশেষ কার্ড) না থাকলে ধরপাকড় জরিমানা করে হয়রানি করা হয় চালকদের।

অথচ টোকেন থাকলেই যেন সাত খুন মাফ। নিবন্ধনহীন গাড়িতে টোকেন দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রথমে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা আদায় করে তারা। সিলেট- সুনামগঞ্জ (গোবিন্দগঞ্জ) সড়কের এসব অটোরিকশা চালকদের মাসিক ৬০০-৮০০ টাকায় এসব টোকেন রিনিউ করতে হয়। এছাড়া নিবন্ধন থাকলে মাসিক ৩০০-৫০০ টাকায় চলে টোকেন রিনিউ।

ছাতকের আবুল হোসেন, আহমদ আলীসহ বেশ কয়েকজন চালক জানান, গাড়ির লাইসেন্সসহ সব ধরনের কাগজ আপডেট থাকলেও হাইওয়ে পুলিশের টোকেন ছাড়া তাদের হয়রানি করা হয়। তাই অনেকেই লাইসেন্স করতে আগ্রহী নয়। টোকেন দিয়েই চালাচ্ছেন গাড়ি এতে সরকার অনেক টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন চালক জানান, ছাতকের বদিরগাঁওস্থ হাইওয়ে পুলিশ থানার টিএসআই নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে এ অঞ্চলে এই অবৈধ টোকেন বাণিজ্য চলে। এতে প্রতি মাসে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন নাজমুল ইসলাম। এছাড়া বিনা কারণে গাড়ি আটকিয়ে মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এ ব্যাপারে নাজমুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য নয় বলে জানান।

জয়কলস হাইওয়ে পুলিশ থানার ইনচার্জ খালেদ মাহমুদ খানা জানান, তিনি নতুন যোগদান করেছেন এ ব্যাপারে এখনো কিছু জানেন না। তবে অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।



সাতদিনের সেরা