kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

মুরগীর দর কষাকষি নিয়ে শিশুকে অমানবিক নির্যাতন

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি   

৬ মার্চ, ২০২১ ১১:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মুরগীর দর কষাকষি নিয়ে শিশুকে অমানবিক নির্যাতন

হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন শিশু আল আমিন। ছবি: কালের কণ্ঠ

রাজশাহীর বাঘায় মুরগীর দর কষাকষি নিয়ে আল আমিন নামে এক শিশুর ওপর অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর ওই শিশুকে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করেছেন স্থানীয় লোকজন। সে এই মুহুর্তে কানে শুনতে পারছে না। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। শুক্রবার (০৫ মার্চ) সকালে উপজেলার নারায়নপুর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে খবর পেয়ে দোকান মালিক মাসুদ আলী অভিযুক্ত বাচ্চু আলীর চাচাতো ভাই বাঘা পৌর ৩ নং কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম টগরকে বিষয়টি অবগত করলে তিনি বলেন, যা পারিস-করে নিস। উপরন্ত অভিযোগ না করার জন্য তিনি দোকান মালিককে হুমকি দেন। নিরুপায় হয়ে ভুক্তভগী শিশুর পিতা ফারুক হোসেন রাতে বাঘা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে জানা গেছে, মুরগী বিক্রেতা মাসুদ আলী (৩০) পিতা মৃত মতলেব আলী নারায়নপুর বাজারের দক্ষিনে বাড়ির সন্নিকটে রাস্তার পাশে মুরগী বিক্রী করে থাকেন। তিনি শুক্রবার সকালে বাঘায় একটি বিয়ে বাড়িতে রোস্টের জন্য মুরগী দিতে যান। তখন তার দোকানে মুরগী বিক্রী করছিল প্রতিবেশী ফরুক হোসেনের ছেলে আল আমিন (১৩)। এ সময় দোকানে মুরগী কিনতে আসেন চকনারায়নপুর গ্রামের মৃত আমান আলীর ছেলে বাচ্চু আলী (৩৩)। সেখানে দর কষাকষি নিয়ে উভয়ের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক হয়।

ঘটনার এক পর্যায় বাচ্চু আলী ওই শিশুর কান সোজা করে গালের উপরে চড়-থাপ্পড় মারা-সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মারপিট করে আহত করে। এ সময় প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে সে ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে আল আমিনকে বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে এনে ভর্তি করেন স্থানীয় লোকজন। বর্তমানে সে ডানকানে ঠিকমতো শুনতে পারছে না। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রামেক হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি)নজরুল ইসলাম জানান, অভিযোগ পেয়েছি এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা