kalerkantho

রবিবার। ৫ বৈশাখ ১৪২৮। ১৮ এপ্রিল ২০২১। ৫ রমজান ১৪৪২

গ্যাস নেওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বের পরিণাম মৃত্যু, প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

৫ মার্চ, ২০২১ ১৮:৫১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গ্যাস নেওয়া নিয়ে দ্বন্দ্বের পরিণাম মৃত্যু, প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের শমসেরনগরে ছুরিকাঘাতে জলিল আহমেদ (২৩) নামে এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও সিএনজি অটোরিকশা চালক নিহত হয়েছে। বিচারের দাবিতে স্বজনসহ এলাকাবাসী ২ ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার শমসেরনগরের বড়চেগ সিএনজি গ্যাস পাম্পে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সিএনজি চালক জলিল আহমেদ উপজেলার আলীনগর বস্তির বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী ওরফে লাল মিয়া ছেলে। নিহতের সংসারে রিয়াদ নামে ২ বছরের এক শিশু সন্তান রয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা ও পুলিশ সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় বড়চেক সিএনজি পাম্পে গ্যাস নিতে যান কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজলো বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক গোলাম কিবরিয়া শফি। একই সময়ে অটোসিএনজি চালক জলিল আহমেদ লাইনে দাঁড়িয়ে ছিল গ্যাস নিতে। এ সময় গ্যাস নেওয়া নিয়ে তার সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন সিএনজি চালক জলিল। এ সময় হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। খবর পেয়ে সিএনজি চালক ও শফির স্বজনরা ঘটনাস্থলে পৌঁছলে উভয়ের মধ্যে মারধরের ঘটনা ঘটে। মারামারি এক পর্যায়ে  সিএনজি চালক জলিলকে ছুরিকাঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথম কমলগঞ্জ হাসপাতালে ও পরে মৌলভীবাজারে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রাতে জলিলকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত কমলগঞ্জ-শমসেরনগর সড়কের হালিমাবাজার এলাকায় নিহত জলিলের স্বজন ও এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ করে। প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর সড়ক হতে অবরোধ তুলে নেন এলাকাবাসী। সড়ক বন্ধ থাকায় উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে কমলগঞ্জ থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান ও ওসি (তদন্ত) সোহেল রানার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অবরোধকারীদের সাথে কথা বলে ঘাতকদের আটকের প্রতিশ্রুতি দিয়ে অবরোধ তুলে দেন।

জলিলের স্ত্রী জরিনা বেগম কান্না জরিত কণ্ঠে বলেন, যারা আমার স্বামীকে মেরেছে এবং আমার বুকের ধনকে পিতাহারা করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। তিনি থানায় মামলা দায়ের করবেন। ঘটনায় অভিযুক্ত সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া শফি সাথে যোগযোগ করলে মোঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

আলীনগর ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক বাদশা বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। জলিলের হত্যার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

কমলগঞ্জ থানার ওসি ইয়ারদৌস হাসান বলেন, ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের জন্য রাতেই বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হয়েছে এবং এখনো অভিযান অব্যাহত রয়েছে। থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা