kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ বৈশাখ ১৪২৮। ২২ এপ্রিল ২০২১। ৯ রমজান ১৪৪২

শোক কাটিয়ে কমন ইল্যান্ড পরিবারে আনন্দ

শাহীন আকন্দ, গাজীপুর   

৫ মার্চ, ২০২১ ১৩:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শোক কাটিয়ে কমন ইল্যান্ড পরিবারে আনন্দ

গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে আফ্রিকান তৃণভোজী প্রাণি কমন ইল্যান্ড পরিবারে শোকের প্রাবল্য ছিল ২০১৯ সালে। সেই সময় একটি মা কমন ইল্যান্ড মারা গিয়েছিল। কিন্তু গত ১০ মাসের ব্যবধানে সেখানে জন্ম নিয়েছে পর পর দুই ছেলে কমন ইল্যান্ড। ঘর আলো করে জন্ম নেওয়া ওই দুই ছেলে কমন ইল্যান্ড ঘিরে পরিবারটিতে এখন আনন্দ-উচ্ছ্বাস। সর্বশেষ গত বুধবার দুপুরে একটি ছেলে কমন ইল্যান্ডের জন্ম হয়। 

সাফারি পার্কের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সদ্যোজাত বাচ্চাসহ মা কমন ইল্যান্ড দুটিই সুস্থ আছে। বাচ্চাটি জন্মের পরই হাঁটতে পারছে। মায়ের পিছু পিছু ঘুরছে। কিছু সময় পর পরই দুধ পান করছে।

সাফারি পার্কের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক সরোয়ার হোসেন জানান, কমন ইল্যান্ড অ্যান্টিলোপ প্রজাতির আফ্রিকান প্রাণী। আফ্রিকা মহাদেশের অনেক স্থানে দেখা যায় এদের। তিনি জানান, ২০১৫ সালের শেষের দিকে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে কমন ইল্যান্ড আনা হয়েছিল। ২০১৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি মা কমন ইল্যান্ড একটি মেয়ে বাচ্চার জন্ম দেয়। এরপর ২০১৯ সালে মা কমন ইল্যান্ডটি মারা যায়।

পার্কের ওই বন্যপ্রাণী পরিদর্শক আরো জানান, প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে মেয়ে কমন ইল্যান্ডটিই করোনা মহামারিকালে গত বছরের ১৮ মে একটি ছেলে বাচ্চার জন্ম দেয়। পরে ফের গর্ভধারণ করে। গত বুধবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে জন্ম দেয় আরো একটি ছেলে বাচ্চা। সদ্যোজাত বাচ্চাসহ পার্কে কমন ইল্যান্ডের সংখ্যা এখন চারটি। এর মধ্যে তিনটিই ছেলে।

সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান জানান, কমন ইল্যান্ড সাধারণত একবারে একটি বাচ্চার জন্ম দেয়। এদের গর্ভকালীন সময় নয় মাস। বন্য পরিবেশে কমন ইল্যান্ডের গড় আয়ু ২০ থেকে ২৫ বছর। মেয়ে কমন ইল্যান্ড দুই থেকে তিন বছরে প্রাপ্তবয়স্ক হয়। তবে ছেলে কমন ইল্যান্ড প্রাপ্তবয়স্ক হয় চার থেকে পাঁচ বছরে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা