kalerkantho

শনিবার । ২৭ চৈত্র ১৪২৭। ১০ এপ্রিল ২০২১। ২৬ শাবান ১৪৪২

গৃহকর্মীকে নির্যাতন : উজিরপুরে ডাক্তারসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা

রাহাদ সুমন,বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:৩১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গৃহকর্মীকে নির্যাতন : উজিরপুরে ডাক্তারসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা

ঢাকায় পঙ্গু হাসপাতালের চিকিৎসকের বাসায় শিশু গৃহকর্মী নিপা বাড়ৈকে (১১) বর্বর নির্যাতনের ঘটনায় অবশেষে উজিরপুর মডেল থানায় তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নির্যাতিত শিশু নিপা বাড়ৈর কাকা তপন বাড়ৈ বাদী হয়ে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ডা. সিএইস রবিন, তার স্ত্রী রাখী দাস ও কম্পাউন্ডার বাসুদেবকে আসামি করে এ মামলা দায়ের করেন।

এদিকে হঠাৎ করে উজিরপুর হাসপাতালে ভর্তি শিশু গৃহকর্মী নিপা বাড়ৈসহ তার স্বজনরা ২৬ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার ভোররাত থেকে নিখোঁজ হয়।

এ ব্যাপারে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শওকত আলী থানায় নিখোঁজ মর্মে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এর সূত্র ধরে মডেল থানার ওসি জিয়াউল আহসানের নির্দেশনায় পুলিশ পার্শ্ববর্তী আগৈলঝাড়ায় নিপার কাকা তপন বাড়ৈর শ্বশুরবাড়ি থেকে তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে এসে মামলা দায়ের করেন।

জানা গেছে, উজিরপুর উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের গজালিয়া গ্রামের ডা. সিএইস রবিন রেজিস্ট্রার হিসেবে কর্মরত ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে এবং তার বাসা শ্যামলীতে। নিপার বাবা প্রতিবন্ধী ও তার মা তাকে ছোট রেখে সংসার ছেড়ে পালিয়ে যান। অর্ধাহারে-অনাহারের সংসার তাদের। অভাবের তাড়নায় ছয় মাস আগে স্থানীয় বাসুদেবের মাধ্যমে উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়নের জামবাড়ি গ্রামের ননী বাড়ৈর মেয়ে নিপা বাড়ৈ (১১) ডাক্তার সিএইস রবিনের বাসায় গৃহকর্মীর কাজে যায়।

বর্বর নির্যাতনের শিকার গৃহকর্মী নিপা বাড়ৈ জানায়, কাজের শুরু থেকেই সামান্য ভুলত্রুটি হলেই ডাক্তার সাহেবের স্ত্রী রাখী তার শরীরে কখনো খুনতি দিয়ে আঘাত, কখনো বা ধারালো চাকু দিয়ে কোপ মারত। এমনকি চিৎকার দিলে গলা চেপে ধরে দেয়ালের সঙ্গে মাথা ঠুকে আঘাত করত। এতে তার দুই হাত, হাতের আঙুল, মাথা, গলা, মুখমণ্ডল, পিঠসহ বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। বাড়ি থেকে মাঝেমধ্যে বৃদ্ধ দাদু ও কাকারা ফোন দিলে ডাক্তারের স্ত্রী রাখী মারধরের কথা না বলার জন্য তাকে ভয়ভীতি দেখাত।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি গৃহকর্মী নিপা বাড়ৈর ওপর ডাক্তারের স্ত্রী নির্মম নির্যাতন চালায়। মাথায় চাকু দিয়ে কোপ মারে, এতে নিপা সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়ে। কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর ভয়ভীতি দেখিয়ে কাউকে কিছু না বলার হুমকি দিয়ে ২৩ ফেব্রুয়ারি ডাক্তার রবিনের কম্পাউন্ডার বাসুদেবের মাধ্যমে নিপাকে তার গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। গ্রামের বাড়িতে পৌঁছলেই নিপার দাদু, কাকিমা, কাকারা তার শারীরিক অবস্থা দেখে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে সে কেঁদে ফেলে তাদের কাছে সব কিছু খুলে বলে।

স্থানীয়রা উজিরপুর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করলে ওসি ২৪ ফেব্রুয়ারি রাত ৩টায় তাকে উদ্ধার করে উজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ প্রসঙ্গে উজিরপুর মডেল থানার ওসি জিয়াউল আহসান বলেন, হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ হওয়া নিপা বাড়ৈকে উদ্ধার করে চিকিৎসক দম্পতিসহ তিনজনকে আসামি করে মামলা নেওয়া হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা