kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

চসিকের প্যানেল মেয়র পদে চোখ

কাউন্সিলর হাসনীর জব্বর মেজবান

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম    

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৩:৪২ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



কাউন্সিলর হাসনীর জব্বর মেজবান

হল সেভেন ইলেভেন, খান কমিউনিটি সেন্টার, চৌধুরী কমিউনিটি সেন্টার ও হাফিজ পার্ক। প্রস্তুত চার-চারটি অভিজাত কমিউনিটি সেন্টার। এগুলোতে চলছে রাজকীয় মেজবানের আয়োজন। কেনা হয়েছে ১৫ গরু, পাঁচ মণ খাসি আর কয়েক মণ মুরগির মাংস। দাওয়াত পেয়েছেন ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ। এই জব্বর মেজবানের বাজেটও বেশ মোটাসোঁটা। বলা হচ্ছে, ছাড়িয়ে যাবে অর্ধকোটি টাকা। আজ বৃহস্পতিবার রাতে এই খাওয়াদাওয়ার আয়োজক চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) দেওয়ানবাজার (২০ নম্বর ওয়ার্ড) থেকে সদ্য জয়ী কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী। তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। গেল দুবার তিনি চসিকের প্যানেল মেয়রও ছিলেন।

এখানেই শেষ নয়, এর আগে ভোটের দুই সপ্তাহ পর কাউন্সিলর হাসনী চসিকের ৪০ সাধারণ কাউন্সিলর এবং ১৪ সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলরের প্রত্যেককে দামি পায়জামা-পাঞ্জাবি ও শাড়ি উপহার দিয়েছেন। হঠাৎ কাউন্সিলর হাসনী পানির মতো টাকা খরচ কেন করছেন? সেটার তালাশ করতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে অন্য খবর। মার্চের প্রথম দিকে চসিকের প্যানেল মেয়র নির্বাচন। ওই চেয়ারে আবারও বসার শখ চারবারের কাউন্সিলর হাসনীর। ভোটারদের (কাউন্সিলর) প্রভাবিত করতেই তাঁর এত সব আয়োজন। শেষ নির্বাচনে হলফনামায় তিনি তাঁর বার্ষিক আয় দেখান মাত্র ৭০ হাজার টাকা। বার্ষিক আয় এত কম, তার পরও বড় বাজেটের আয়োজন নিয়ে নগরজুড়ে মুখে মুখে ফিরছে রসিক আলোচনা।

এদিকে আজ রাতে মেজবান আয়োজনের চিঠি এরই মধ্যে বিলি হয়েছে। ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘২৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার আমার মা-বাবা ও পূর্বপুরুষদের ইসালে সওয়াবের উদ্দেশ্যে বাদ আসর হাফিজ পার্ক কমিউনিটি সেন্টারে খতমে কোরআন ও মিলাদ মাহফিল এবং রাতে মেজবানের আয়োজন করেছি। মেজবান হাফিজ পার্ক, হল সেভেন ইলেভেন, চৌধুরী কমিউনিটি সেন্টার এবং খান কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে।’

এর মধ্যে হাফিজ পার্ক ও হল সেভেন ইলেভেন নগরের অভিজাত কমিউনিটি সেন্টার। নগরের সিরাজউদ্দৌলা সড়কের কাছাকাছি দূরত্বে এসব কমিউনিটি সেন্টার। হল সেভেন ইলেভেন আমন্ত্রিত অতিথি, হাফিজ পার্কে মুসলিম পুরুষ, চৌধুরী কমিউনিটি সেন্টারে মুসলিম নারী, খান কমিউনিটি সেন্টারে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান পুরুষ ও নারীদের জন্য মেজবানের আয়োজন রাখা হয়েছে।

গতকাল বুধবার দুপুরে ওই কমিউনিটি সেন্টারগুলোতে গিয়ে জানা যায়, এসব কমিউনিটি সেন্টারের হলভাড়া প্রায় তিন লাখ টাকা। এরই মধ্যে কিছু টাকা অগ্রিমও দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শুরু হবে রান্না। খান ও চৌধুরী কমিউনিটি সেন্টার কর্তৃপক্ষ জানায়, এ দুটিতে প্রায় সাত হাজার মানুষের খাবারের ব্যবস্থা থাকবে। অন্য দুটিতে ১২-১৩ হাজারের বেশি মানুষের খাবারের আয়োজন চলছে।

মেজবানের বিষয়ে জানতে চাইলে হাসিমাখা মুখে কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী বলেন, ‘এগুলো পত্রিকায় লেখার দরকার নেই। এখন এগুলো বললে সমস্যা হবে।’ মেজবানে কত লোক খাবে—এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘১৫-২০ হাজার হবে।’ গরু কয়টি কেনা হয়েছে জানতে চাইলে হাসনী বলেন, ‘১০টি গরু।’ ছাগলের সংখ্যা জানতে চাইলে আর কোনো উত্তর না দিয়ে ফোন কেটে দেওয়ার আগে এই কাউন্সিলর বলেন, ‘আপনি (প্রতিবেদক) দেখা করেন।’

বার্ষিক আয় কম, এর পরও এত বড় আয়োজন : চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী সর্বশেষ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হলফনামায় নগরের ঘাটফরহাদবেগ এলাকায় ‘মেসার্স মা-মণি শালকর’ নামের একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থাকার কথা উল্লেখ করেন। তা থেকে বার্ষিক আয় দেখান ৭০ হাজার টাকা। এর আগে ২০১৫ সালের নির্বাচনী হলফনামায় ওই ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বার্ষিক আয় উল্লেখ করেছিলেন ৬০ হাজার ১৫০ টাকা। এ ছাড়া ২০১৫ সালের হলফনামায় চাকরি খাতে (কাউন্সিলর সম্মানী ভাতা) বার্ষিক আয় দেখান এক লাখ ৮০ হাজার টাকা। ২০২০ সালের হলফনামায় দেখান চার লাখ ২০ হাজার টাকা। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে হাসনীর নামে ২০২০ সালে নগদ চার হাজার ২৬৫ টাকা এবং ২০১৫ সালে দুই লাখ ২০ হাজার ২০০ টাকা ছিল। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ২০১৫ সালের নির্বাচনী হলফনামায় এক লাখ আট হাজার এবং ২০২০ সালে তিন লাখ ৯৯ হাজার ৪৪৭ টাকা দেখানো হয়।

করোনা মহামারির মধ্যে এই আয়োজনে উৎকণ্ঠা : গতকাল চট্টগ্রামে এক দিনে সর্বোচ্চ করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত ৭ ফেব্রুয়ারি করোনার টিকাদান কর্মসূচির মধ্যেও চট্টগ্রামে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় জনমনে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা রয়েছে। এখনো সরকারিভাবে নির্দেশনা রয়েছে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার। সেই সঙ্গে সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনাও বলবৎ আছে।

এদিকে আজকের মেজবানের বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘এখনো করোনা যায়নি। আজকেও এক দিনে এক শর কাছাকাছি আক্রান্ত। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সংক্রমণ আরো বেড়ে যাবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা তো বাধা দিতে পারি না। প্রশাসনকে জানাতে হবে। শুধু আইন দিয়ে হবে না। করোনা মোকাবেলায় জনসচেতনতা বেশি প্রয়োজন।’

চারটি কমিউনিটি সেন্টার নগরের কোতোয়ালি মডেল থানা এলাকার নবাব সিরাজউদ্দৌলা সড়কে। করোনার মধ্যে কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনীর মেজবানের আয়োজন সম্পর্কে জানতে চাইলে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মো. নেজাম উদ্দিন বলেন, ‘হাসনী সাহেব আমাদেরকে জানিয়েছেন, মেজবানে অল্প অল্প লোক আসবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা হবে।’

২০ নম্বর দেওয়ানবাজার ওয়ার্ডের বাসিন্দা এবং গত নির্বাচনে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, ‘অতীতে উনার (হাসনী) মা ও ছোট বোনের মৃত্যুতে একটি কমিউনিটি সেন্টারে ফাতেহার আয়োজন করেছিলেন। উনার বাবা আরো আগে মারা গেছেন। আগে কখনো এ রকম মেজবানের আয়োজন করেননি। এবারই প্রথম বড় আয়োজন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা