kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

পুলিশের মামলা : রেনুসহ ৭৩ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী খালাস

পাকুন্দিয়া (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৯:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুলিশের মামলা : রেনুসহ ৭৩ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী খালাস

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর পুলিশের দায়ের করা একটি মামলা থেকে খালাস পেয়েছেন পাকুন্দিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা চেয়রম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুসহ আওয়ামী লীগের ৭৩ জন নেতাকর্মী।

আজ বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কিশোরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আশিকুর রহমান আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন। রায়ে তিনি সকল আসামিকে খালাস প্রদান করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর পাকুন্দিয়া সদর ঈদগাহে উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে এক কর্মিসভার আয়োজন করেন। তৎকালীন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব উদ্দিন সমর্থিত ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা একই স্থানে কর্মিসভার আহ্বান করে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উল্লেখিত স্থানসহ পৌরসদরে ১৪৪ ধারা জারির আদেশ দেন।

উভয় পক্ষের লোকজন নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কর্মিসভা করার চেষ্টা করলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এরই প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে পাকুন্দিয়া থানার এসআই মো. রিয়াজ উদ্দিন বাদী হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনুসহ ৭৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ২-৩ হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পাকুন্দিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। এ সময় এমপি সমর্থিত লোকজনকে মামলায় আসামি করা হয়নি।

তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি এসআই জাহাঙ্গীর আলম আদালতে ৭৩ জনের নাম উল্লেখ করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। দীর্ঘ বিচারিক কার্যক্রম শেষে আজ আদালত আসামিদের মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

মামলা থেকে খালাস পেয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম রেনু বলেন, এই মামলায় যাদেরকে আসামি করা হয়েছে সকলই আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মী। তাঁরা বিভিন্নভাবে এ মামলার মাধ্যমে নির্যাতিত হয়েছে। আজ এই রায়ের মাধ্যমে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হলো।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা