kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা ফের মহাসড়কে, বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৯:১৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা ফের মহাসড়কে, বিক্ষোভ

বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়ক আবারো অবরোধ করেছেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) শিক্ষার্থীরা। পূর্বঘোষিত ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম শেষে হবার পরেও নির্যাতনকারীদের গ্রেপ্তার না করায় শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে এসেছেন। এদিকে সড়ক অবরোধের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন বরিশালসহ, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা ও কুয়াকাটাগামী যাত্রীরা। জরুরি প্রয়োজনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রলারযোগে দপদপিয়া ফেরিঘাট পার হয়ে কেউ কেউ গন্তব্যের দিকে যাচ্ছেন। এতে করে দুর্ঘটনার ঝুঁকির পাশাপাশি ট্রলার ডুবির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। 

শুক্রবার বিকেল ৫টার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এর আগে বিকেল ৫টায় ক্যাম্পাসে একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা। পরে মহাসড়ক আটকে শিক্ষার্থীরা হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে মিছিল সমাবেশ অব্যহত রেখেছে। সন্ধ্যার পর শিক্ষার্থীরা সড়কে মশাল মিছিল বের করে। ফলে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু এবং খয়রাবাদ সেতুর দুই পাশে কয়েকশত পরিবহন আটকে আছে। শুধু রোগী পরিবনের যানগুলোকে ওই সড়ক পার হতে দিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। তাদের পাশেই পুলিশ প্রশাসন অবস্থান করছেন।

আন্দোলনকারীরা অভিযোগ করেন, গত মঙ্গলবার মধ্যরাতে তাদের ওপর হামলার ঘটনায় ববি প্রশ্রাসন যে মামলা করেছে, তাতে নামধারী কাউকে আসামি করা হয়নি। যদিও হামলার স্বীকার শিক্ষার্থীরা অন্তত তিনজনের নাম প্রকাশ করেছিল। অজ্ঞাতনামাদের আসামি করায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করেনি। এই ঘটনার প্রতিবাদে তারা আবার সড়কে নেমেছেন। শিক্ষার্থীরা বলছেন, তাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তরা এ আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

এর আগে বুধবার মধ্যরাত থেকে পরবর্তী ১৪ ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছিলেন শিক্ষার্থীরা। সেদিন বিকেলে মঙ্গলবারের রাতের হামলার ঘটনায় দোষিদের বিরুদ্ধে মামলা করা দ্রুত আইনের আওতায় আনা এবং অনাবাসিক সব শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিধানে ভূমিকা নেওয়ার তিন দফা দাবি উত্থাপন করেন শিক্ষার্থীরা। এসব দাবি আদায়ে শুক্রবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে ছিলেন তারা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষাথীদের আস্বস্থ করার পর তারা রাস্তা ছেড়ে চলে আসেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা